বিহারে বিজেপি নেতার পর সাংবাদিককে লক্ষ্য করে গুলি, সেই মুজফফরপুরেই, চাপে নীতীশ কুমার

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ঠিক ন’দিন আগে বিহারের মুজফফরপুরে বিজেপি নেতাকে গুলি করে খুন করা হয়। শুক্রবার আবার মুজফফরপুরেই গুলিবিদ্ধ হলেন সাংবাদিক। এদিন রাতে সাংবাদিক ফিরোজ আখতারকে খুব সামনে থেকে গুলি করে দুষ্কৃতীরা। রক্তাক্ত অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করেন স্থানীয়রা। গুরুতর জখম আখতারের অবস্থা এখনও  আশঙ্কাজনক। একের পর এক হামলা, খুনের ঘটনায় ফের প্রশ্নের মুখে বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার।  গত কয়েকমাস ধরেই রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা সামলাতে না পারার অভিযোগ উঠছে নীতীশের বিরুদ্ধে। সাংবাদিকের উপর হামলার ঘটনায় নতুন করে চাপে নীতীশ।

মুজফফরপুরে সোনপতি পুলিশ স্টেশন থেকে ঢিল ছোড়া দূরত্বে সাংবাদিককে গুলি করা হয় বলে খবর। ভর সন্ধ্যায় ব্যস্ত বাজারে আখতারকে টার্গেট করে দুষ্কৃতীরা। ঘটনার পরও পুলিশের দেখা মেলেনি বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। প্রশ্ন উঠছে,বিহারে যে সুশাসনের আশ্বাস দিয়েছিলেন নীতীশ,গত একবছরে  তা কোথায় উবে গেল।

বিজেপিকে সাহায্য করুন, জেলাশাসকের নির্দেশ ডেপুটিকে, হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট ভাইরাল

সাংবাদিককে গুলি করার ঘটনাও নতুন নয় বিহারে। কয়েক মাস আগেই পাটনার কাছে এক সাংবাদিককে খুন করার চেষ্টা করা হয়। কোনওরকমে তিনি প্রাণে বাঁচেন। এছাড়াও চলতি মাসেই নালন্দায় রাষ্ট্রীয় জনতা দলের কর্মীকে গুলি করে খুন করা হয়। তার এক সপ্তাহের মধ্যেই দুই যুবক গণপিটুনির মুখে পড়েন। জানা যায়, দুজনেই রাষ্ট্রীয় জনতা দলের কর্মী। সবমিলিয়ে রাজ্যবাসীর কাছেই বিশ্বাস যোগ্যতা হারিয়েছেন নীতীশ কুমার বলে মনে করা হচ্ছে। অভিযোগ প্রত্যেক ঘটনায় পুলিশের ভূমিকা বারবার প্রশ্নের মুখে পড়ছে। কোনও হামলা বা খুনের অভিযোগ দায়ের করতেও রাজি হচ্ছে না পুলিশ স্টেশনগুলি। মুখ্যমন্ত্রীর দফতরে অভিযোগ জানিয়ে চিঠি দিয়েও কোনও লাভ হয়নি বলে দাবি।

২০১৬-র বিহারে সাংবাদিক রাজদীপ রাজনকে গুলি করে থুন করা হয়। যা দেশজুড়েই সাড়া ফেলেছিল। খুনের পিছনে রাজনৈতিক কারণ স্পষ্ট ছিল। ঠিক পরের বছরই সাংবাদিক খুনের অভিযোগে আরজেডির নেতা মহম্মদ সাহাবুদ্দিন সহ তিন জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট পেশ করে সিবিআই। শুক্রবার সাংবাদিক ফিরোজ আখতারকে গুলি করার পিছনেও কোনও রাজনৈতিক কারণ আছে কি না সেই নিয়ে ধন্দ বাড়ছে। পাশপাশি রাজ্যজুড়ে বরোধীদের স্লোগান উঠছে, নীতীশের ‘সুশাসন’ এখন ‘অপশাসনে’ পরিণত হয়েছে।

ইডি-র দফতর থেকে দিদির ব্রিগেড, তেজস্বী যাদবের জন্য ব্যবস্থা হেলিকপ্টারের

 

 

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More