Latest News

‘হয় মাস্ক নয় ভ্যাকসিন’, কোভিড-আবহে হাওয়া গরম করছে নয়া মার্কিনি মন্ত্র, সিদুঁরে মেঘ দেখছন চিকিৎসকরা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়েছে। সেই সঙ্গে শুরু হয়েছে দেশজুড়ে গণটিকাকরণের কাজ। ইতিমধ্যে ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রক। কিন্তু করোনা ঠেকাতে এই টিকা যে চিরস্থায়ী রক্ষাকবচ নয়, তারও বেশ কিছু ইঙ্গিত মিলেছে।

এই পরিস্থিতিতে আমেরিকার রাষ্ট্রপতি জো বাইডেন এবং সেখানকার শীর্ষ স্বাস্থ্য সংস্থা সেন্টার্স ফর ডিজিজ কন্ট্রোল (সিডিসি)-এর জারি করা বিবৃতি দুনিয়াজুড়ে ধোঁয়াশা বাড়িয়েছে। হয় পুরোদস্তুর ভ্যাকসিন নিন, নয়তো মাস্ক পরুন— বাইডেনের এই ঘোষণায় আতান্তরে চিকিৎসক মহল। ভ্যাকসিনের দু’টো ডোজ কি করোনার বিরুদ্ধে অনাক্রম্যতা তৈরি করে? এই প্রশ্নের সদুত্তর না মেলায় বিভ্রান্তি আরও বেড়েছে।

সম্প্রতি ওয়াশিংটনে একটি অনুষ্ঠানে মার্কিন রাষ্ট্রপতি ও ক্যাবিনেট সদস্যরা মাস্ক খুলে এই বার্তা দেওয়ার চেষ্টা করেন। পরে হোয়াইট হাউজের তরফে একটি টুইটে লেখা হয়, ‘সিডিসি সূত্রে বড় খবর। যদি আপনার ভ্যাকসিনের সম্পূর্ণ ডোজ নেওয়া থাকে, তাহলে ঘরে কিংবা বাইরে কোথাও মাস্ক পরার দরকার নেই।’ একই সুর শোনা যায় বাইডেনের টুইটেও। তিনি জানান, ‘বন্ধুরা, টিকা নেওয়া থাকলে মাস্ক না পরলেও চলবে। যদি ডোজ না নেওয়া হয়ে থাকে তাহলে আপনি কাছের স্বাস্থ্যকেন্দ্রে যান। আর ভ্যাকসিন না নেওয়া পর্যন্ত মাস্ক ব্যবহার করুন। নিয়মটা সোজা— হয় মাস্ক নয় টিকা। পছন্দ আপনার।’

এমনিতে দুনিয়াজুড়ে সিডিসি-র আলাদা কদর রয়েছে। বহু দেশ এমনকী চিকিৎসক মহলের বড় অংশ এর গাইডলাইনের অপেক্ষায় থাকে। বিশেষ করে কোভিড পরিস্থিতিতে সিডিসি-র বেশ কিছু নির্দেশিকা শুধু আমেরিকা নয়, বিশ্বের বাকি দেশগুলিতেও অক্ষরে অক্ষরে মানা হয়েছে।

কিন্তু এবারকার পরিস্থিতি কিছুটা আলাদা। সিডিসি করোনার বিরুদ্ধে ভ্যাকসিনেশনকে এতটা গুরুত্ব দেওয়ায় অনেকে অস্বস্তি ঝেরে ফেলতে পারছে না। বিশেষ করে, একাধিক দেশে যখন টিকাকরণ শেষ হওয়ার পরেও সংক্রমণের হদিশ মিলেছে, তখন এই ঘোষণা ধোঁয়াশা বাড়িয়েছে।

তার উপর সম্প্রতি আমেরিকার শীর্ষ স্বাস্থ্য সংস্থাটি জানিয়েছিল, সম্পূর্ণ টিকাকরণের পরেও আমেরিকায় ‘ব্রেকথ্রু ইনফেকশন’ ছড়াচ্ছে। অর্থাৎ, ভ্যাকসিনের ফলে শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হলেও তা নিশ্চিত সুরক্ষা দিতে পারছে না। টিকা নেওয়ার পরেও অনেকে অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। মার্কিন মুকুকে ইতিমধ্যে প্রায় ৯ হাজার ব্রেকথ্রু ইনফেকশনের খোঁজ মিলেছে। মোট জনসংখ্যার নিরিখে তেমন কিছু তাৎপর্যপূর্ণ না হলেও নতুন করে আক্রান্তদের ৬৩ শতাংশই মহিলা। তার উপর এদের মধ্যে ১০৩ জন মারাও গেছেন।

সব মিলিয়ে ‘নয় মাস্ক নয় ভ্যাকসিনে’র মার্কিনি মন্ত্র হাওয়া গরম করছে ঠিকই। কিন্তু তা স্বস্তি দিতে পারছে না।

You might also like