Latest News

‘করোনা আবহেও ভোট বন্ধ রাখা যেত না’, বিরোধীদের একহাত নিয়ে সাফাই জয়শঙ্করের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ‘যখন কোনও মহামারী আসে, তখন অনেক বিতর্ক আর প্রশ্ন দানা বাঁধতে পারে। কিন্তু তাই বলে ভারতের মতো গণতান্ত্রিক দেশে নির্বাচন বন্ধ রাখা যায় না।’– এই ভাষাতেই কোভিড পরিস্থিতিতে বিধানসভা নির্বাচন চালু রাখার পক্ষে সাফাই দিলেন বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর৷

দেশজুড়ে যখন করোনা ভয়াবহ আকার নিচ্ছে তখন পাঁচ রাজ্যে ভোটাভুটি স্থগিত রাখার পক্ষে সওয়াল ওঠে। দেশ-বিদেশের অনেক মহল দাবি জানায়, নির্বাচন বন্ধ করে কেন্দ্র করোনা নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা নিক।

কিন্তু কার্যক্ষেত্রে সেটা হয়নি। মার্চ-এপ্রিল মাস ধরে ভোট চলেছে। রাজনৈতিক দলগুলির মিছিল আর জমায়েতে ভিড় জমিয়েছে কাতারে কাতারে মানুষ। আর সেই সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে সংক্রমণ। দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা যখন তিন লক্ষের গণ্ডি ছুঁয়েছে, তখনও রাজনৈতিক নেতানেত্রীরা কর্মকাণ্ড থেকে নিজেদের বিরত রাখেনি। যার জেরে আমজনতা, নেটমাধ্যম সহ একাধিক জায়গায় ক্ষোভ দানা বাঁধতে শুরু করে।

গোটা বিষয়টিকে সামনে টেনে আজ জয়শঙ্কর বলেন, ‘আমরা তর্কপ্রিয় সমাজে বাস করি। যেখানে বিতর্কে পয়েন্ট অর্জন করার বিষয়টিকে গুরুত্ব দেওয়া হয়। মানে, কেউ বলবে অমুক জায়গার জনতা করোনা ছড়িয়েছে। অন্যরা বলবে, না, তমুক জায়গার জনগণ এর জন্য দায়ী। একদল বলবে অমুক নেতা মাস্ক পরেননি। তখনই আরেক দল রে রে করে উঠে জানাবে, তমুক নেতার মুখেও তো মাস্ক নেই! আমার মনে হয়, গোটা বিতর্কে এবার ইতি টানাটা খুব জরুরি।’

বিরোধিতায় সুর চড়ানো আমজনতাকে একহাত নেওয়ার পাশাপাশি বিরোধী দল কংগ্রেসকেও নিশানায় টানেন জয়শঙ্কর। সাফ জানান, ‘ভারতের মতো গণতান্ত্রিক দেশে এভাবে নির্বাচন থামানো যায় না। বেশ কয়েক দশক আগে ভোটাভুটি বন্ধ রাখা হয়েছিল।… তখন আমি বেশ ছোট। আর সেই স্মৃতি এমনই, যেটা কেউ ফিরে দেখতে চায় না।’ স্পষ্ট বোঝা যায়, ১৯৭৫ সালে ইন্দিরা গান্ধীর নেতৃত্বাধীন কংগ্রেস সরকারের জরুরি অবস্থা জারির প্রসঙ্গকে ইঙ্গিত করতে চাইছেন জয়শঙ্কর।

আবার এর উল্টোদিকে কোভিডের বিরুদ্ধে লড়াই নিয়ে যথেষ্ট প্রত্যয়ী বিদেশমন্ত্রী। যদিও এখানেও দানা বেঁধেছে বিতর্ক। একসময় ঘরের দুর্ভোগ সামাল না দিয়ে বিদেশে করোনার টিকা রফতানি করেছিল কেন্দ্র। এখন চারিদিকে ভ্যাকসিনের হাহাকার, অক্সিজেনের সংকটের জেরে সেই সিদ্ধান্তকে তুলোধোনা করছেন বিরোধীরা। কিন্তু জয়শঙ্করের স্পষ্ট দাবি, তাঁদের সিদ্ধান্ত সঠিক।

যুক্তি হিসেবে তিনি বলেন, ‘আমাদের মনে রাখতে হবে, করোনা একটা সার্বিক সমস্যা। তাই আমেরিকা কিংবা সিঙ্গাপুরের মতো বন্ধুরাষ্ট্রকে ভ্যাকসিন অথবা অন্যান্য চিকিৎসা সরঞ্জাম সরবরাহ করায় কোনও ভুল নেই।’

You might also like