Latest News

Wriddhiman Saha: বাংলা দলের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপই ছেড়ে দিলেন ঋদ্ধি, ক্ষুব্ধ কোচ অরুণ লাল

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সিএবি (CAB) কর্তারা শেষ চেষ্টা করেছিলেন, পারেননি। বাংলার (Bengal) কোচ অরুণ লালও কথা বলেন ঋদ্ধিমান সাহার (Wriddhiman Saha) সঙ্গে। তারপরেও মন গলানো যায়নি। শেষমেশ বাংলা দলের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ ছেড়েই দিলেন বাংলার নামী উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান।

অরুণ লাল বলেছেন, ‘‘ঋদ্ধির সঙ্গে আমি কথা বলেছিলাম, কিন্তু ও দেখলাম নিজের সিদ্ধান্তে অবিচল রয়েছে। হয়তো কোনও বিষয় নিয়ে অভিমান করে বসে রয়েছে, সেটি ওকে বুঝিয়েছিলাম। জানি না আমার কথায় কাজ হবে কিনা।’’

ঋদ্ধি আর বাংলার হয়ে খেলতে চান না, সেটি পরিষ্কার করে দিয়েছেন। চলতি আইপিএলে তিনি ভাল ফর্মে বিরাজ করছেন। সেই কারণেই নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস ঝরে পড়ছে। এর আগে তিনি রঞ্জির গ্রুপ পর্বে খেলবেন না, সেটি বাংলার কর্তাদের জানিয়েছিলেন। সেইসময় রঞ্জি দলেও তাঁকে রাখা হয়নি।

Arun Lal: ‘কেকেআর বাংলার দর্শকদের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাচ্ছে’, বিস্ফোরক অরুণ লাল

তারপরে অবশ্য নকআউট পর্বের দলে ঋদ্ধির সঙ্গে কথা না বলে দলে রাখা হয়। এই বিষয়কে ভালমতন গ্রহণ করেননি বাংলার নামী তারকা। তিনি সিএবি প্রেসিডেন্ট অভিষেক ডালমিয়াকে ফোন করে বলেছিলেন, আমাকে দলে রাখা হল, অথচ আমার সঙ্গে কথা বলা হল না, এটা কেমন ব্যাপার? পাশাপাশি সিএবি-র সহসচিব দেবব্রত দাসের ব্যবহারেও ঋদ্ধি ক্ষুব্ধ হয়েছেন।

সিএবি-র ওই কর্তা ঋদ্ধির প্রতি রাগ দেখিয়ে কথা বলেছিলেন। এমনকি ঘরোয়া আলোচনায় ওই কর্তার কথা ঋদ্ধির কানে চলে গিয়েছিল। কর্তাটি ঋদ্ধির দায়বদ্ধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন। পাশাপাশি নির্বাসিত সঞ্চালক ও সাংবাদিক বোরিয়া মজুমদারকে সমর্থন করে ঋদ্ধির প্রতি উদাসীন ছিল সিএবি। সেই রাগটিও ছিল শিলিগুড়ির পাপালির।

তাই গুজরাত টাইটান্স দলের হয়ে আইপিএল খেলতে এসে ইডেনকে বিপক্ষের মাঠ বলে উল্লেখ করেছিলেন। ঋদ্ধি বরং জানান, তাঁর ঘরের মাঠ ইডেন নয়, আমেদাবাদের মোতেরা। সেইসময় বোঝা গিয়েছিল, কর্তাদের প্রতি তাঁর রাগ যায়নি। বুধবার রাতের দিকে তিনি বাংলা দলের গ্রুপ ছেড়ে বেরিয়ে গিয়ে ঋদ্ধি বুঝিয়ে দিলেন, তাঁর ভিনরাজ্যের হয়ে রঞ্জি খেলা শুধুই সময়ের অপেক্ষা।

You might also like