Latest News

বুনো হাতির গলায় জিপিএস কলার লাগানোর কাজ থমকে দক্ষিণবঙ্গে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: দক্ষিণবঙ্গের বনাঞ্চলে হাতির (Elephant) জন্য দুটি রেডিও কলার ১৮ মাস ধরে রাজ্য বন বিভাগের কাছে অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে আছে। ওই জিপিএস কলার (GPS Collars) হাতির পালের অবস্থান এবং গতিবিধি ট্র্যাক করার কাজে লাগানোর কথা। কিন্তু তা হচ্ছে না। ফলে হাতির মৃত্যু ও লোকালয়ে তাণ্ডবের আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে।

গত কয়েক বছর ধরে উত্তরবঙ্গের হাতিদের কলার দিয়ে ট্যাগ করা হয়েছে। কিন্তু দক্ষিণবঙ্গে (South Bengal) ব্যবস্থা থাকা সত্ত্বেও তা করা হয়নি বলে অভিযোগ।

উত্তরের বনাঞ্চলে পালের মা হাতির গলায় কলার লাগানো হয়েছে। যাতে পুরো পালের গতিবিধির ওপর নজর রাখা যায়। দক্ষিণবঙ্গে বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, ঝাড়গ্রাম, পশ্চিম মেদিনীপুরের বন এবং আশেপাশের অঞ্চলগুলির দলছুট পুরুষ হাতির তাণ্ডব বেশি।

সামান্য বৃষ্টিতেই বেহাল শহরের একাধিক রাস্তা

একা বিচরণ করে এমন পুরুষ হাতি, যেগুলি কোনও পালের অংশ নয়, সেইসব হাতিরাই বেশি সমস্যা তৈরি করে। বনদফতরের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, দুটো জিপিএস কলার রয়েছে, যা চিহ্নিত দশটি হাতির দলে লাগানো হবে। তবে আরও ডিভাইসের জন্য অপেক্ষা করাই বিলম্বের একমাত্র কারণ নয় বলে জানিয়েছেন বন কর্মকর্তাদের একাংশ।

ঝাড়খণ্ডের দলমা রেঞ্জের হাতিরা প্রতিবছর দক্ষিণবঙ্গের বাঁকুড়া, পশ্চিম মেদিনীপুর এবং ঝাড়গ্রামের গ্রামে ফসল নষ্ট করে এবং মাঝে মাঝে মানুষও মেরে ফেলে। এই সমস্যা মেটাতে কলার লাগানো খুবই জরুরি। কিন্তু পর্যাপ্ত জিপিএস কলার না থাকায় নিঃসঙ্গ ও বিপজ্জনক হাতি চিহ্নিত করার কাজ থমকে দক্ষিণবঙ্গে।

You might also like