Latest News

পরিবারে মেয়ের চেয়েও বেশি অধিকার বিধবা স্ত্রীর, কী বলল এলাহাবাদ হাইকোর্ট?

দ্য ওয়াল ব্যুরো: পরিবারে (family) কার অধিকার বেশি, পুত্রবধূ (wife) না মেয়ের (daughter)? এলাহাবাদ হাইকোর্টের (allahabad high court) মত, ছেলের বউ বা তাঁর বিধবা স্ত্রীর (widow)। শুধু তাই নয়, তিনি পরিবারের গুরুত্বপূর্ণ সদস্যও (family member)। উত্তরপ্রদেশ সরকারকে এ ব্যাপারে বর্তমান নিয়মবিধি বদলের নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। ২০১৯ সালের ৫ আগস্টের আদেশ সংশোধন করতে বলেছে রাজ্য সরকারকে। হাইকোর্ট রায়ে বলেছে,  পরিবারে মেয়ের থেকেও বেশি অধিকার পুত্রবধূর। উত্তরপ্রদেশ সম্পত্তি বন্টন ও নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১৬য় ছেলের বউকে পরিবারের সংজ্ঞার মধ্যে ধরা হয়নি। ফলে তার ভিত্তিতে ২০১৯ সালের এক আদেশে উত্তরপ্রদেশে ছেলের বউকে সম্পত্তির দাবিদার বলে গণ্য করা হয়নি। পরিবারে নিজের প্রাপ্য অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছিলেন পুত্রবধূ। কিন্তু পুত্রবধূ সধবা বা বিধবা, যা-ই হোন কেন, তাঁকে দাবিদার বলে স্বীকৃতি দিতে হবে। হাইকোর্ট বলেছে, মেয়ের মতো পুত্রবধূও পরিবারের সদস্য,  শরিক।

আরও পড়ুন—ব্লাউজের সেলাই পছন্দ হয়নি, স্বামীর সঙ্গে ঝগড়া করে আত্মঘাতী স্ত্রী!

উত্তরপ্রদেশ পাওয়ার কর্পোরেশন লিমিটেড, সুধা জৈন বনাম উত্তরপ্রদেশ সরকার, গীতা শ্রীবাস্তব বনাম উত্তরপ্রদেশ সরকার মামলার ফয়সালা করে আবেদনকারী পুষ্পা দেবীর দাবি মানার নির্দেশ দিয়ে তাঁর নামে পরিবারের রেশন দোকানের মালিকানা নির্দিষ্ট করতে বলেছে হাইকোর্ট। বলেছে, ঘরের বউ (তিনি বিবাহবিচ্ছিন্না বা বিধবা, যা-ই হোন) মেয়ের থেকে বড় দাবিদার।

আবেদনকারী পুষ্পা দেবী হাইকোর্টে জানান, তিনি বিধবা। তাঁর শাশুড়ি মহাদেবী দেবীর নামে একটি রেশন দোকান বরাদ্দ আছে। চলতি বছরের ১১ এপ্রিল শাশুড়ি মারা যান। এতে তিনি চরম সঙ্কটে পড়েছেন। দুটি বাচ্চাকে নিয়ে অথৈ জলে পড়েছেন তিনি, কেননা শাশুড়ির ওপরই এতদিন নির্ভরশীল ছিলেন তিনি। পরিবারে আর কেউ নেই। তাঁর নিজের স্বামী মারা গিয়েছেন। আর কোনও পুরুষ বা মহিলা সদস্য নেই পরিবারে। তাই শাশুড়ির যাবতীয় সম্পত্তির উত্তরাধিকারী তিনি। তাঁর নামে শাশুড়ির রেখে যাওয়া রেশন  দোকানটি বরাদ্দ করা হোক। তিনি এব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেছিলেন। কিন্তু তারা তাঁর বক্তব্য  গ্রহণ করেনি উত্তরপ্রদেশ সরকারের ২০১৯ এর ৫ আগস্টের সেই আদেশ দেখিয়ে যাতে বলা হয়েছিল, পুত্রবধূ পরিবারের সদস্যের পর্যায়ে পড়েন না।

 

You might also like