Latest News

স্ত্রীর সম্মতিতে এত গুরুত্ব কেন! বৈবাহিক ধর্ষণ মামলায় বলল দিল্লি হাইকোর্ট

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বৈবাহিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে যৌন সম্পর্কে স্ত্রীর সম্মতির ওপর এত জোর দেওয়া হচ্ছে কেন? মন্তব্য দিল্লি আদালতের বিচারপতির। বৈবাহিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে স্ত্রীর সম্মতি ছাড়া যৌন মিলনকে অপরাধ হিসেবে দাখিল করা আবেদনের শুনানিতে এমনই এক মন্তব্য করেন বিচারপতি হরি শঙ্কর।

দিল্লি হাইকোর্টে শুক্রবার এই মামলার শুনানি ছিল। সেখানেই বিচারপতি হরি শঙ্কর, বিবাহিত ও অবিবাহিত সম্পর্কের মধ্যে পার্থক্য বোঝাতে গিয়ে এমন মন্তব্য করেন। এই মামলায় অ্যামিকাস কিউরি হিসেবে নিযুক্ত আছেন রেবেকা জন। তাঁর উদ্দেশে এদিন বিচারপতি বলেন, আমাদের বুঝতে হবে যে বিবাহিত এবং অবিবাহিতদের যৌন সম্পর্কের মধ্যে একটি গুণগত পার্থক্য রয়েছে। তিনি আরও বলেন, কেউ এই বিষয়টিকে চক ও পনিরের পার্থক্যের সঙ্গে তুলনা করতে পারে না।

প্রসঙ্গত, বিয়ে হওয়া সত্ত্বেও স্ত্রী যদি যৌন সম্পর্কের সময় সম্মতি পোষণ না করেন, টা সত্ত্বেও যদি যৌন সম্পর্ক করতে বাধ্য করেন স্বামী তাহলে তা ধর্ষণ বলে গণ্য হবে কি না, এ নিয়ে বিতর্ক চলছে। দিল্লি হাইকোর্টে বিচারপতি রাজীব শাকধের ও বিচারপতি সি হরি শঙ্করের বেঞ্চে এই বিষয়ে শুনানি চলছে। রেবেকা জনকে এই বিষয়ে আদালতকে সাহায্য করার জন্য অ্যামিকাস কিউরি করা হয়েছে।

ভারতীয় দণ্ডবিধি ৩৭৫ ধারার ব্যতিক্রমই হিসেবে স্ত্রীর সম্মতি ছাড়া যৌন সম্পর্কে রাখার জন্য স্বামীকে ফৌজদারি মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। সেই বিষয়কেই চ্যালেঞ্জ জানিয়ে হাইকোর্টে পিটিশন দায়ের করা হয়েছে।

এই মামলার শুনানিতেই স্ত্রীর সম্মতির বিষয়টি নিয়ে সন্দিহান প্রকাশ করেন বিচারপতি শঙ্কর। বিচারপতি শঙ্কর বলেন, কিছু মৌলিক যুক্তির ভিত্তিতে সংসদ ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৭৫ ধারায় স্বামীকে ছাড় দিয়েছে। আমরা শুধুমাত্র সম্মতির বিষয়ের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে আইনসভার দেওয়া যুক্তিকে অস্বীকার করার চেষ্টা করছি। সংসদ প্রণীত সংবিধানের ধারণাকে আমরা অস্বীকার করতে পারি না। বিশেষ করে অপরাধমূলক বিষয়ে। শুক্রবার শুনানির শুরু থেকেই, বিচারপতি শঙ্কর জোর দিয়েছিলেন যে বিবাহিত এবং অবিবাহিতের মধ্যে মৌলিক পার্থক্য রয়েছে সেই বিষয়ের ওপর।

ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৭৫ (২) ধারা কী?

ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৭৫ ধারায় ধর্ষণের সংজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। এর অধীনে স্বামীর জন্য উপ-ধারা ২ এ তার ব্যতিক্রম রয়েছে। এই ব্যতিক্রম বলে যে বিবাহের সময় একজন পুরুষ যদি তার স্ত্রীর সঙ্গে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করে, যার বয়স ১৮ বা তার বেশি হয়, তাহলে তাকে ধর্ষণ বলা হবে না, যদিও সে সেই সম্পর্ক স্ত্রীর সম্মতি ছাড়া করে থাকে।

You might also like