Latest News

চিনের নতুন ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণে কেন ভয় পেয়েছে আমেরিকা

দ্য ওয়াল ব্যুরো : গত জুলাই মাসে একটি হাইপারসোনিক অস্ত্রের মাধ্যমে ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করে চিন (China)। মার্কিন সেনা জানতই না যে, কোনও দেশ ওইভাবে ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়তে পারে। দক্ষিণ চিন সাগরের ওপর দিয়ে ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়েছিল একটি হাইপারসোনিক গ্লাইড ভেহিকল। একটি সূত্রে খবর, হাইপারসোনিক ভেহিকলের গতি ছিল শব্দের চেয়ে পাঁচগুণ বেশি। পর্যবেক্ষকরা অনেকে ভেবেছিলেন, চিনে এয়ার টু এয়ার মিসাইল ছুড়েছে। কিন্তু ক্ষেপণাস্ত্রটি যে হাইপারসোনিক ভেহিকল থেকে ছোড়া হয়েছে, তা কেউই সম্ভবত ভাবতে পারেননি।

একটি মার্কিন সংবাদ মাধ্যমের রিপোর্টে জানা যায়, গত ২৭ জুলাই চিন প্রথমবার হাইপারসোনিক ওয়েপন পরীক্ষা করে। দ্বিতীয়বার ওই পরীক্ষা করা হয় ১৩ অগাস্ট। চিনের বিদেশ মন্ত্রক থেকে কিন্তু বলা হয়েছিল, রুটিন মাফিক একটি মহাকাশযান নিয়ে পরীক্ষা চালানো হচ্ছে। বিজ্ঞানীরা দেখতে চাইছিলেন, একটি মহাকাশযান পৃথিবীতে ফিরে আসার পরে ফের তাকে মহাকাশে পাঠানো যায় কিনা।

কোনও শত্রু দেশের সম্ভাব্য ক্ষেপণাস্ত্র হানার বিরুদ্ধে আগেই ব্যবস্থা নিয়েছে আমেরিকা। পেন্টাগন থেকে ব্যবস্থা করা হয়েছে যাতে বিদেশের কোনও ক্ষেপণাস্ত্র আমেরিকার আকাশে এলেই তাকে ধ্বংস করে ফেলা যায়। কিন্তু চিনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং চাইছেন এমন ক্ষেপণাস্ত্র বানাতে যা আমেরিকার প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাকে নিষ্ক্রিয় করে দিতে পারে। হাইপারসোনিক ভেহিকল থেকে ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্র মার্কিন প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাকে অচল করে দিতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

কার্নেগি এনডাওমেন্ট ফোর পিস-এর পক্ষ থেকে অঙ্কিত পান্ডা বলেন, “এর আগে হাইপারসোনিক ভেহিকল থেকে কেউ মিসাইল ছুড়েছে বলে আমার জানা নেই।”

গত সেপ্টেম্বর মাসে জানা যায়, আকসাই চিন, ডোকলামে সামরিক কাঠামো বানাচ্ছে চিন। তিব্বত ও জিনজিয়াং এলাকায় প্রায় দু’হাজার কিলোমিটার রেঞ্জের সারফেস টু এয়ার মিসাইল সিস্টেম বসিয়েছে পিপলস লিবারেশন আর্মি। চিনের মিসাইল সিস্টেমের পাল্টা ভারত আরও শক্তিশালী ও আধুনিক যুদ্ধাস্ত্র মোতায়েন করেছে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা তথা এলএসিতে। লাল সেনার মিসাইলের মোকাবিলায় ভারত তৈরি রেখেছে বিশ্বের সর্বাধুনিক সুপারসনিক ব্রাহ্মস মিসাইল, নির্ভয় ক্রুজ মিসাইল এবং আকাশ সারফেস টু এয়ার মিসাইল ।

লাদাখে ইতিমধ্যেই কুইক রিঅ্যাকশন সারফেস টু এয়ার মিসাইল মোতায়েন করেছে ভারত। এয়ার ডিফেন্স সিস্টেমকে আরও মজবুত করতে ডিআরডিও (ডিফেন্স রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন)-র বানানো বিয়ন্ড ভিসুয়াল রেঞ্জ এয়ার-টু-এয়ার ‘অস্ত্র’ মিসাইল এবং সারফেস-টু-সারফেস ল্যান্ড অ্যাটাক  ‘নির্ভয়’ ক্রুজ মিসাইল প্রস্তুত রেখেছে ভারতীয় বাহিনী। সূত্রের খবর, আকসাই চিন শুধু নয় প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার ৩,৪৮৮ কিলোমিটার রেঞ্জে কাশগড়, হোটান, নিংচিতে মিসাইল সিস্টেম তৈরি করছে চিনের সেনা। তাই চিনা বাহিনীকে সবদিক থেকে রুখতে আরও ভারত তার সেরা ক্ষেপণাস্ত্রগুলোকেই ফোর ফ্রন্টে রেখেছে।

You might also like