Latest News

স্নায়ুবিজ্ঞানে ডক্টরেট তিনি, ‘জঙ্গি’দোষে কারাদণ্ড পেয়েছেন ৮৬ বছরের! কে এই আফিয়া

দ্য ওয়াল ব্যুরো: মার্কিন জেলে বন্দি আফিয়া সিদ্দিকী। ২০১০ সাল থেকে মার্কিন জেলই তাঁর স্থায়ী বাসস্থান হয়ে যায়। অভিযোগ, জঙ্গি গোষ্ঠী ‘আল কায়েদা’র সঙ্গে যোগ ছিল তাঁর! এমনকি জঙ্গি কার্যকলাপের সঙ্গে যুক্ত থাকার অপরাধে গ্রেফতার হওয়া পাকিস্তানি আফিয়া সিদ্দিকীকে ৮৬ বছরের কারাদণ্ডের সাজা শোনায় মার্কিন আদালত।

সেই আফিয়া সিদ্দিকীর মুক্তির দাবিতেই এক ইহুদি দুষ্কৃতী টেক্সাসের এক উপাসনালয়ে চারজনকে বন্দি করে। ১০ ঘন্টারও বেশি সময় ধরে আটক করে রাখে চারজনকে। অবশেষে মার্কিন সশস্ত্র বাহিনীর তৎপরতায় নিহত হয় ওই দুষ্কৃতী। মুক্তি পান চারজন।

কিন্তু কে এই আফিয়া সিদ্দিকী? তিনি একজন উচ্চশিক্ষিত পাকিস্তানি মহিলা। ১৮ বছর বয়সে আমেরিয়ায় পাড়ি দেন তিনি। সেখানেই একাধিক নামী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পড়াশোনা করেন। পেশায় ছিলেন স্নায়ুবিজ্ঞানী। বস্টনের এমআইটি থেকে পিএইচডি লাভ করেন তিনি।

তবে ২০০১ সালে ৯/১১ হামলার পরই তিনি মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই-এর নজরে আসে। ইসলামিক সংগঠনগুলিকে অনুদানের করার অভিযোগ ওঠে তাঁর বিরুদ্ধে। এমনকি ১০ হাজার মার্কিন ডলারের একটি নাইট-ভিশন চশমা ও যুদ্ধ সংক্রান্ত বই কেনারও অভিযোগ আসে। তাঁর গতিবিধির ওপর নজর চালাতে শুরু করে এফবিআই।

তবে হঠাৎই ২০০৩ সালে করাচিতে তিন সন্তান-সহ নিখোঁজ হয়ে যান আফিয়া সিদ্দিকী। কোনও খোঁজ পায়নি মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা। তবে পাঁচ বছর পর তাঁর দেখা পাওয়া যায় আফগানিস্তানে। সেখানকার গজনি থেকে স্থানীয় বাহিনী গ্রেফতার করে তাঁকে।

জানা যায়, আমেরিকায় যখন তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছিল সেই সময় তিনি নাকি অনবরত ‘আমেরিকার মৃত্যু’ বা ‘আমেরিকানদের হত্যা করতে চাই’ বলে স্লোগান তোলেন। এমনকি একটি রাইফেল ছিনিয়ে নিয়ে গুলিও চালায়। কিন্তু সেই গুলিতেই আহত হন তিনি।

অভিযোগ, তিনিই প্রথম মহিলা যাকে মার্কিন মুলুক আল কায়েদার সঙ্গে যোগসূত্র আছে বলে সন্দেহ করে। যদিও তা এখনও প্রমাণিত হয়নি। তবে আমেরিকান সেনা অফিসারদের হত্যা করার চেষ্টা করে বলে তাঁকে গ্রেফতার করা হয়। বিচারে ৮৬ বছরের কারাদণ্ড হয় আফিয়ার।

তারপর থেকেই জেলবন্দি তিনি। তবে তাঁর বন্দি হওয়ার পর থেকেই তাঁর সমর্থকেরা মুক্তির দাবিতে আন্দোলন শুরু করে। এমনকি আল কায়েদার তরফে এই ঘটনার ‘প্রতিশোধ’-এর ডাক দেয়। যদিও সেই প্রতিশোধের চেষ্টা বিফল হয়। কিন্তু পাকিস্তানে আফিয়া সিদ্দিকীর জনপ্রিয়তা বেশ ভালই। অনেকের মতে, তাঁকে মিথ্যা ফাঁসানো হয়েছে। সেই আফিয়া সিদ্দিকী বহুদিন পর ফের শিরোনামে।

You might also like