Latest News

দুয়ারে মুদিখানা-ওষুধ, হোয়াটসঅ্যাপে হ্যালো লিখলেই মুশকিল আসান

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ছোট্ট একটা কাজ। হোয়াটসঅ্যাপ খুলে একটা নির্দিষ্ট নম্বরে লিখতে হবে হ্যালো। তারপরেই আপনার চাহিদা মতো জিনিস পৌঁছে যাবে বাড়ির দুয়ারে। সে মুদিখানার জিনিস হোক কিংবা সাজগোজ, ওষুধ—হ্যালো লিখলেই হল!

কেরলের চার বন্ধু মিলে শুরু করল এরান্ডো। কী এই এরান্ডো? যাকে বলা হচ্ছে প্রথম হোয়াটসঅ্যাপ-পাওয়ারড ডেলিভারি সিস্টেম। কী থাকবে তাতে? এরান্ডোর অফিসিয়াল হোয়াটসঅ্যাপ নম্বরে শুধু হ্যালো লিখতে হবে। তাহলেই আপনাকে অটোমেটিক মেসেজ জিজ্ঞেস করবে কী চাই? ওষুধ নাকি চাল-ডাল? ওষুধ লাগলে কী ওষুধ? হোয়াটসঅ্যাপে টাইপ করে দিলেই আপনার বাড়িতে চলে আসবে সেসব।

এরান্ডোর অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সমীর পাথায়াকান্ডি বলেছেন, এই সার্ভিস চালু করার অর্থ ক্রেতাকে যাতে হ্যাপা পোহাতে না হয়। একটা অ্যাপ ডাউনলোড করে কেনাকাটি মানে অনেক ঝক্কি। ফোনের মেমরিজুড়ে সেই অ্যাপ বসে থাকে। এক্ষেত্রে সেসব নেই।

টাকা দেওয়ার উপায়ও খুব সহজ। আপনার অর্ডার দেওয়া শেষ হলেই ফোন পে বা গুগল পে-র লিঙ্ক চলে আসবে। সেখানে একটা ক্লিক করলেই টাকা চলে যাবে এরান্ডোর অ্যাকাউন্টে। এরান্ডো আপনাকে জানাবে, ধন্যবাদ। আপনার পেমেন্ট আমরা পেয়েছি, শিগগির আপনার প্রয়োজনীয় জিনিস আপনার কাছে আমাদের প্রতিনিধি পৌঁছে দিচ্ছেন। তারপর আপনার বাড়িতে ডেলিভারি পৌঁছে যাওয়ার পরে ফের আপনার হোয়াটসঅ্যাপে একটি মেসেজ যাবে। জানিয়ে দেওয়া হবে, যা চেয়েছেন, তা পেয়েছেন।

মালয়ালাম, হিন্দি, কন্নড়, তামিল—আপাতত এতগুলি ভাষায় পরিষেবা দেবে এরান্ডো। দক্ষিণের একাধিক রাজ্যে তারা তাদের বিস্তার ঘটাচ্ছে। আগামী দিনে পশ্চিম ও উত্তর ভারতেও পা রাখার লক্ষ্য রয়েছে এই চার বন্ধুর সংস্থার।

You might also like