Latest News

ধর্ষকদের প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড চেয়েছিলেন, এনকাউন্টারের কথা শুনে কী বললেন জয়া…

দ্য ওয়াল ব্যুরো : ধর্ষকদের প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড চাই। গত সপ্তাহে সংসদে মন্তব্য করেছিলেন সমাজবাদী পার্টির রাজ্যসভার সাংসদ জয়া বচ্চন। শুক্রবার সকালে শোনা যায়, চার ধর্ষককে গুলি করে মেরেছে তেলঙ্গানা পুলিশ। পরে জয়া ইঙ্গিত দিয়েছেন, তিনি এনকাউন্টারকে সমর্থন করেন।

এদিন জয়াকে সংসদে ওই এনকাউন্টার সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি শুধু বলেন, “দের আয়ে দুরস্ত আয়ে।” অর্থাৎ কখনও না হওয়ার চেয়ে দেরিতে হওয়া ভাল। এর আগে তিনি বলেছিলেন, “এই ধরনের অপরাধীদের প্রকাশ্যে শাস্তি দেওয়া উচিত। আমি মনে করি, সাধারণ মানুষের এখন সরকারের কাছে জানতে চাওয়া উচিত, অপরাধীদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেওয়া হবে?”

রাজ্যসভায় সরকারের সমালোচনা করে জয়া বলেন, “সরকার করছেটা কী? কীভাবে এই ধরনের অপরাধের মোকাবিলা করা হচ্ছে? আক্রান্তদের কীভাবে ন্যায়বিচার দেওয়া হচ্ছে? আমি কারও নাম করতে চাই না। কিন্তু নিরাপত্তারক্ষীরা কি এক্ষেত্রে দোষী নন? এসব বন্ধ হচ্ছে না কেন?”

গত সপ্তাহের বুধবার  রাত ৯টা ২০ নাগাদ, হায়দরাবাদে এনএইচ ৪৪-এর ওপর পেশায় পশুচিকিৎসক ওই ২৬ বছরের তরুণীর স্কুটির চাকা পাংচার করে দিয়েছিল অভিযুক্তরা। তার পরের এক ঘণ্টার মধ্যেই তাঁকে গণধর্ষণ করে পুড়িয়ে মারে তারা। ধরা পড়ার পরে অভিযুক্তরা স্বীকার করেছে, তরুণী যাতে চিৎকার না করতে পারেন, সে জন্য তাঁর গলায় জোর করে মদ ঢেলে দিয়েছিল তারা। এমনকি তরুণীকে পোড়াতেও তাঁরই স্কুটির পেট্রোল ঢালা হয়েছিল বলেও স্বীকার করেছে তারা।

এই ঘটনায় তদন্তে নেমে, দু’দিন পরে, শুক্রবার চার জন অভিযুক্তকেই গ্রেফতার করে পুলিশ। মহম্মদ আরিফ, জল্লু শিবা, জল্লু নবীন ও চিন্তাকুন্তা চেন্নাকেশাভুলু নামের এই চার অভিযুক্তকে শনিবার ১৪ দিনের বিচারবিভাগীয় হেফাজতে পাঠিয়েছিলেন তেলঙ্গানার শাদনগরের ম্যাজিস্ট্রেট। তেলঙ্গানার চেরাপল্লীর সেন্ট্রাল জেলে ছিল তারা। ফার্স্ট ট্র্যাক কোর্টে তাদের বিচার হবে বলেও সিদ্ধান্ত হয়েছিল।

এ দিন তদন্তের জন্য ঘটনার পুনর্নির্মাণ করার কাজ করছিল পুলিশ। তখনই চার ধর্ষককে নিয়ে যাওয়া হয় এনএইচ ৪৪-এ, যেখানে গত সপ্তাহের বুধবার তরুণী পশু চিকিৎসককে গণধর্ষণ করে আগুনে পুড়িয়ে খুন করে তারা। চলছিল তদন্ত, জেরা। এ সময়ে হঠাৎই চার ধর্ষক পালাতে যায় বলে দাবি করেছে পুলিশ। তখনই চালাতে হয় গুলি। ঘটনাস্থলেই মারা যায় চার ধর্ষক।

You might also like