Latest News

‘দীপ্তি যা করেছে, ঠিক করেছে’, লর্ডসের ঘটনা নিয়ে সোজাসাপটা ঝুলন

দ্য ওয়াল ব্যুরো: লডর্সে ঝুলন গোস্বামীর (Jhulan Goswami) বিদায়ী ম্যাচে দীপ্তি শর্মার (Deepti Sharma) ম্যানকাডিং আউট (Mankading Out) ঘিরে প্রবল বিতর্ক চলছে। ইতিমধ্যেই চার দিন অতিবাহিত, তারপরেও বিতর্কের আগুন নিভছে না। বরং সারা ক্রিকেট দুনিয়া মুখরিত ওই কাণ্ডে। ইংল্যান্ডের চার্লি ডিনকে ম্যানকাডিং আউট করে বিতর্কে ভারতের বোলার।

এই বিতর্ককে আরও উসকে দিলেন ঝুলন। বুধবার তিনি দ্য ওয়ালকে একান্ত সাক্ষাৎকারে বলেন, “দীপ্তি এতটুকু ভুল করেনি, লিনকে তো আগে সতর্কও করেছিল দীপ্তি। না শুনলে কী করবে। আমার তো মনে হয় এই আউট ঘিরে হইচইয়ের কোনও মানেই হয় না”।

লিগে ইস্টবেঙ্গল ম্যাচ বাতিল, তুমুল বৃষ্টিতে নৈহাটিতে ধুয়ে গেল ম্যাচ

ঝুলন বেশ আক্রমণাত্মক ঢঙে আরও বলেছেন, “দীপ্তি ওই রানআউট করেছে আইসিসি-র নিয়ম মেনেই। এমনকি এমসিসি-ও বলেছে, ম্যানকাডিং আউটে কোনও বিতর্ক নেই। এটাই আধুনিক ক্রিকেট”।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বারবার এই আউট ঘিরে বিতর্ক হয়েছে। একটা সময়ে কপিলদেবও দক্ষিণ আফ্রিকার পিটার কার্স্টেনকে আউট করেছিলেন এমনভাবে। কপিল বোলিং করার সময় দেখেন পিটার নন স্ট্রাইকার এন্ডে ক্রিজ ছেড়ে বেরিয়ে এসেছেন। সেইসময় একবার সতর্কও করেছিলেন কপিল। তখনও কথা শোনেননি প্রোটিয়া ব্যাটসম্যান। তারপরেই বোলিং করার সময় বেল তুলে রাগে গজরাতে থাকেন কপিল।

এমনকি শেষ আইপিএলের সময়ও জস বাটলারকে ম্যানকাডিং আউট করেছিলেন অশ্বিন। সেই নিয়েও কম বিতর্ক হয়নি। এবার সেই ইংল্যান্ডের ব্যাটসম্যানকেই ওই ভাবে আউট করে বিতর্ক বাড়িয়েছেন দীপ্তি।

মহিলা ক্রিকেটের জনপ্রিয়তা কি বাড়ছে? নাকি এটা অনেকটাই মরশুমি, ধারাবাহিকতা নেই?
বুধবার এই প্রশ্নের জবাবে দ্য ওয়ালকে ঝুলন বলেছেন, “এটার জন্য মিডিয়াও দায়ী, তারাও প্রচার করে না মহিলা ক্রিকেট নিয়ে। এই ঝুলন গোস্বামী অবসর নিয়ে ফিরল, একটার পর একটা সাক্ষাৎকার। কিন্তু পাশাপাশি বাংলার আরও মহিলা ক্রিকেটারদের কথা তুলতে হবে। বোর্ড তো অনেকটাই করছে। কিন্তু দেখতে হবে সামগ্রিকভাবে কী করা যায়”।

সৌরভের থেকেও আপনার লড়াই কি বেশি কঠিন ছিল?
ঝুলন বলেন, “সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের লড়াই আলাদা। তাঁকে দেখে আমরা ছোটবেলা থেকেই অনুপ্রাণিত হয়েছি। তাঁকে দেখে শিখেছি কীভাবে বিপক্ষের চোখে চোখ রেখে দলকে শাসন করতে হয়। সৌরভ আমাদের কাছে দৃষ্টান্ত হিসেবেই থেকে যাবেন”।

আগামী দিনে কি আপনাকে ক্রিকেট কোচ হিসাবে দেখতে পাব আমরা?
দ্য ওয়ালকে ঝুলন বুধবার বলেছেন, “যে ভালবাসা আমি শেষবার ভারতীয় ড্রেসিংরুমে পেয়েছি, তার তুলনা নেই কোনও। আমি এখনও ঠিক করিনি কী করব। অবসর জীবন ভাল করে কাটাতে চাই। নিজে ক্রিকেটার হিসেবে দলে থাকা, সতীর্থদের সঙ্গে মেশা একরকম। আর দলকে কোচিং করাতে গেলে যে দক্ষতা দরকার, সেটার জন্য আমাকে শিখতে হবে। আমি তৈরি না হয়ে কোনও কাজে হাত দিই না। বাংলা মহিলা ক্রিকেটারদের মেন্টর হিসেবে কাজ চালিয়ে যেতে চাই। তারপর দেখা যাবে কী হবে। তবে হ্যাঁ, বাইশ গজ নিয়েই বেঁচে থাকব”।

You might also like