Latest News

Weather: কলকাতা পুড়ছে, জলপাইগুড়িতে হু হু শীতে সোয়েটার গায়ে স্কুলে পড়ুয়ারা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: গরমে কাহিল দক্ষিণবঙ্গ। পড়ুয়াদের কথা ভেবে নির্ধারিত সময়ের অনেক আগেই গরমের ছুটি ঘোষণা করে দিয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Weather)। ২ মে থেকে স্কুলগুলিতে গরমের ছুটি বলে জানিয়েছেন তিনি। এমনই সময় জলপাইগুড়িতে (Jalpaiguri) সোয়েটার গায়ে দিয়ে স্কুলে আসতে দেখা গেল পড়ুয়াদের।

আরও পড়ুন: আন্দামানে জমাট বাঁধছে ঘূর্ণাবর্ত! কলকাতায় কালবৈশাখীর পূর্বাভাস দিল হাওয়া অফিস

দক্ষিণবঙ্গে গরমের জেরে গোটা রাজ্যে গরমের ছুটি এগিয়ে আনায় উত্তরের জেলাগুলিতে প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে আগেই। উত্তরের মানুষের বক্তব্য, মে মাসের গোড়াতেও তেমন গরম পড়ে না উত্তরবঙ্গে (Weather)। তাহলে এখানেও ছুটি এগোনো হল কেন? শুধু দার্জিলিং, কালিম্পং নয় উত্তরের সব জেলায় গরমের ছুটি আরও পরে দিলেই ভালো হয় বলে তাঁদের মত। ঝড়-বৃষ্টির জেরে হিমেল আবহাওয়ায় সোয়েটার গায়ে দিয়ে স্কুলে আসা পড়ুয়ার দল তাদের সেই ভাবনাতেই যেন সিলমোহর দিল।

জলপাইগুড়ির ফণীন্দ্রদেব স্কুলের প্রাথমিক বিভাগ। শনিবার সকালে সোয়াটার পরে স্কুলে আসা খুদেদের দল রীতিমতো নজর কাড়ল। গত কয়েকদিন ধরে জলপাইগুড়ি জেলায় বিক্ষিপ্ত ভাবে বৃষ্টি হচ্ছে। শুক্রবার রাত থেকেও শুরু হয়েছে টানা বৃষ্টি। শনিবার সকালেও বৃষ্টি চলে। ফলে বেশ হিমেল অনুভূতি হচ্ছে বাসিন্দাদের। তাপমাত্রা অনেকটাই নেমে যাওয়ায় স্কুলে আসা ছাত্রদের গায়ে দেখা মিললো সোয়েটার। কারও কারও আবার মাথায় ছিল টুপিও। তাদেরই কথায়, এখন কেন যে স্কুল ছুটি দিল। পরে ছুটি দিলেই ভালো হত।

একই রকম ভাবনা অভিভাবকদেরও। “সেই অর্থে আমাদের এই অঞ্চলে গরমই পরেনি। সকালে সোয়েটার গায়ে চাপিয়েই বাচ্চাকে স্কুলে নিয়ে এসেছি। গরমের ছুটি আমাদের এদিকে পরে দিলেই ভালো হতো।” বললেন বর্ণালী বসু নামের এক অভিভাবক। আরেক অভিভাবক মহম্মদ আমিনুল বললেন, “আমাদের এখানে মে মাসেও তেমন গরম থাকে না। আর এবার তো সমানে বৃষ্টি হওয়ায় রীতিমতো ঠান্ডা। উত্তরবঙ্গের স্কুলগুলিতে গরমের ছুটি আরও পরে দিলেই ভালো হতো।”

শিক্ষক সংগঠন এবিটিএ-র পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে একটি স্মারকলিপি জমা দেওয়া হয়েছে জেলা স্কুল পরিদর্শককে। দক্ষিণবঙ্গে গরম হলেও উত্তরবঙ্গে তাপমাত্রা সেভাবে বাড়েনি। সেই কারণে এখনই গরমের ছুটির প্রয়োজন নেই বলেই সংগঠনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। শিলিগুড়ির বিজেপি বিধায়ক শঙ্কর ঘোষও উত্তরবঙ্গে গরমের ছুটি এগিয়ে আনার সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রীকে চিঠি দেন। এই ডামাডোলকে আরও উস্কে দিল ভরা বৈশাখে সোয়েটার পরে স্কুলে আসা পড়ুয়ারা।

You might also like