Latest News

শ্রদ্ধা-কাণ্ডের ছায়া উত্তরপ্রদেশে! স্ত্রী’কে সন্দেহের বশে কেটে ছড়িয়ে দিল স্বামী

দ্য ওয়াল ব্যুরো: দিল্লিতে লিভ-ইন সঙ্গীর হাতে শ্রদ্ধা ওয়াকার হত্যার ঘটনায় গোটা দেশেই আতঙ্কের সৃষ্টি করেছে। কিন্তু এরমধ্যেই খবরের শিরোনামে এসেছে এমনই আরও বেশ কয়েকটি ঘটনা, যা দেখে শিউরে উঠছেন সকলে। সবমিলিয়ে দিল্লির এই হত্যাকাণ্ডের রেশ যেন কিছুতেই কাটছে না।

রাজধানীর এই ঘটনার পর একইভাবে খুন করে দেহ টুকরো টুকরো (Chops Body) করে ছড়িয়ে দেওয়ার ঘটনা সামনে এসেছে এরাজ্যের বারুইপুর, উত্তরপ্রদেশ (UP) থেকে। বুধবার ফের একইধরনের আরও একটি খুনের ঘটনা সামনে এল। আর এবারেও ঘটনাস্থল সেই যোগীরাজ্য। জানা গেছে, উত্তরপ্রদেশের সীতাপুরের বাসিন্দা এক মহিলাকে খুন করে দেহ কুচিকুচি করে ফেলে দেওয়ার অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছে তাঁর স্বামীই (husband)। গোটা ঘটনায় এলাকায় জোর আতঙ্ক ছড়িয়েছে। ইতিমধ্যেই প্রধান অভিযুক্ত হিসাবে দু’জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

সূত্রের খবর, গত ৮ নভেম্বর সেরাজ্যের সীতাপুর জেলার রামপুর কালান এলাকা থেকে এক যুবতীর খণ্ড-বিখণ্ড দেহ উদ্ধার করা হয়। দেহের একাধিক টুকরো ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকার কারণে প্রথমে পুলিশ দেহ শনাক্ত করতে পারছি না। পরে জানা যায়, ওই মৃতদেহটি জ্যোতি ওরফে স্নেহা নামক এক যুবতীর। তাঁকে খুন করার অভিযোগ ওঠে তাঁরই স্বামীর পঙ্কজ মৌর্যের বিরুদ্ধে। পুলিশি জেরায় সে একাধিকবার বয়ান বদল করছিল বলে জানা গেছে। পরে নিজের মুখেই খুনের কথা স্বীকার করে পঙ্কজ।

জেরায় সে জানায়, নিজের এক ঘনিষ্ঠ বন্ধুর সাহায্য নিয়েই স্ত্রী’কে খুন করেছে সে। তার দাবি, স্ত্রী স্নেহা ওরফে জ্যোতি নিয়মিত মাদক সেবন করত। এমনকী মাঝেমধ্যেই অন্যের বাড়িতে রাত কাটাত। এগুলি নিয়ে আগে বহুবার সে নিষেধ করেছিল, তবে কোনও কথাই শোনেনি স্ত্রী। এই নিয়ে তাদের মধ্যে তুমুল বচসাও হয়েছে আগে। এরপর তাঁর সন্দেহ হয়, স্ত্রী’র অন্য কারও সঙ্গে নিশ্চয়ই সম্পর্ক রয়েছে। আর সেই রাগেই তিনি স্ত্রী’কে খুন করেন। আর দেহ টুকরো টুকরো করে কেটে ফেলে দেন।

লাভ জিহাদ! গুজরাতের কলেজে সংখ্যালঘু ৩ ছাত্রকে মারধরের অভিযোগ

You might also like