Latest News

নিজের দলের নেতাদেরই দেখে নেওয়ার হুমকি তৃণমূল বিধায়কের

দ্য ওয়াল ব্যুরো, পূর্ব বর্ধমান: পঞ্চায়েত নির্বাচনের ঢাকে কাঠি পড়ে গেছে। রাজ্যে নেতৃত্বের নির্দেশে ইতিমধ্যেই জেলায় জেলায় শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের তৎপরতা শুরু হয়ে গেছে। বিরোধী রাজনৈতিক দল বিশেষ করে বিজেপিকে কোণঠাসা করতে ছোট-বড় বিভিন্ন জনসভা থেকে আক্রমণ শুরু করেছে তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব। কিন্তু পূর্ব বর্ধমান ১ নম্বর ব্লকে ঠিক উলটো ছবি। বিরোধীদের পরিবর্তে প্রকাশ্যে নিজের দলের নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে হুমকি দিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের বর্ধমান-উত্তরের বিধায়ক নিশীথকুমার মালিক (TMC MLA Threating Party Members)।

বর্ধমান ১ নম্বর (Burdwan) ব্লক তৃণমূলের পক্ষ থেকে আয়োজিত শীতবস্ত্র প্রদানের অনুষ্ঠান মঞ্চ থেকে বিধায়ক তার দলের বেশ কয়েকজন নেতার নাম না করে হুঁশিয়ারি দিলেন। পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর তাদের ‘দেখে নেওয়ার’ হুমকি দিলেন তিনি। বিধায়ক নিশীথকুমার মালিক বলেন, “খেলা শুরু হয়ে গেছে। জামালের (সেখ জামাল) টিম রেডি আছে। তুমি তোমার দম নিয়ে রেডি হও। যেদিন বলবে যে জায়গায় বলবে সেখানে দেখা হবে। কার কত প্লেয়ার আছে।” রায়ান ১ নম্বর অঞ্চলের তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি শেখ জামাল।

সাসপেন্ড বারাসতের ইনস্পেক্টর, অভিষেককে নিয়ে ‘কুরুচিকর’ মন্তব্য করেছিলেন তিনি

রায়ান ১ নম্বর অঞ্চলের তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি শেখ জামাল। বিধায়ক নিশীথ মালিকের এই মন্তব্যর পরেই রাজনৈতিকমহলে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। তৃণমূলের অন্দরমহলেও শুরু হয় চাপানউতোর। তাঁর এই মন্তব্যর ব্যাপারে জেলাপরিষদ সদস্য নরুল হাসান বলেন, “বিধায়ক অনেক পরে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিয়েছেন। আমরা দলের পুরাতন কর্মী, দলের জন্মলগ্ন থেকে আছি। বিধায়ক ১১ সালের পর তৃণমূলে এসেছেন। উচ্চ নেতৃত্বের নির্দেশ সত্ত্বেও বিধায়ক পুরনো দিনের নেতা-কর্মীদের নিয়ে কাজ করছেন না, তাদের প্রাপ্য সম্মানটুকুও দেন না। তাই তিনি বিরোধী রাজনৈতিক দলকে ছেড়ে নিজের দলের নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে চক্রান্ত করছেন।”

বিজেপি অবশ্য গোটা বিষয়টি বেশ উপভোগ করছে। বিজেপি নেতা সুধীররঞ্জন সাউ বলেন, “পঞ্চায়েত ভোটে এলাকায় রক্তগঙ্গা বয়ে যাবে। কারণ তৃণমূল কংগ্রেস নিজেদের মধ্যেই লড়াই করবে। গোটা ব্লক দুর্নীতিতে ভরে গেছে। এলাকার সাধারণ মানুষ পঞ্চায়েতে গেলে পরিষেবা পাচ্ছেন না।”

You might also like