Latest News

চুরি করে বেরোনোর সময় গৃহকর্তার পা ছুঁল চোর! রেখে গেল বাজার করার টাকাও

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ধারালো ভোজালি হাতে বাড়িতে ঢুকেছিল দুজন চোর (Theft)। গৃহকর্তার গলায় সেই ভোজালি ঠেকিয়েই  কাজ সারে তারা। টাকাপয়সা সমস্ত লুঠ করে নেয়। একে নিছক চুরি না বলে ডাকাতি বলাই সঙ্গত। কিন্তু তারপর যা হয়েছে সে কথাই আশ্চর্যের। গৃহকর্তার অবস্থা দেখে মায়া হয়েছে চোরের। কিছু টাকা রেখে গেছে তারা (Farakka)।

ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার রাতে মুর্শিদাবাদের (Mursidabad) ফারাক্কায়। সেখানেই একটি আবাসনের বাসিন্দা হরিশ্চন্দ্র রায়, পেশায় অবসরপ্রাপ্ত স্কুল শিক্ষক। তাঁর বাড়িতে রাতে হানা দেয় দুই দুষ্কৃতী। অভিযোগ দুজনের কাছেই ধারালো অস্ত্র ছিল। বাড়িতে টাকাপয়সা যা আছে সব বের করে দিতে বলে তারা। গৃহকর্তার ভাইও ওই সময় বাড়িতেই ছিলেন। চোরেরা তাকে শৌচালয়ে বন্ধ করে রাখে।

ভোজালির মুখে দাঁড়িয়ে আলমারি থেকে টাকাকড়ি সবই বের করে দেন হরিশ্চন্দ্রবাবু। নগদ ১৫ হাজার টাকা তিনি তুলে দেন চোরের হাতে। বাড়ি থেকে দুটি মোবাইল ফোনও নিয়ে নিয়েছিল চোরেরা।

তবে এরপরেই ঘটে সেই অদ্ভুত ঘটনা। চুরির পর বাড়ি থেকে বেরোনোর সময় বৃদ্ধ গৃহকর্তা দুই চোরের কাছে কাকুতি মিনতি করতে থাকেন, পরের দিন বাজার করার টাকাটুকুও নেই তাঁর কাছে। এসব শুনেই চোরের মায়া হয়। গৃহকর্তার হাতে বাজার করার খরচ বাবদ ২০০ টাকা তুলে দেয় তারা। সেই সঙ্গে রেখে যায় মোবাইল ফোনদুটিও।

এখানেই শেষ নয়, বৃদ্ধ গৃহকর্তাকে যাওয়ার আগে প্রণামও করে যায় ওই দুই দুষ্কৃতী।

চোরের এই মানবিক রূপ নিঃসন্দেহে চমকপ্রদ, তবে গোটা ঘটনায় বিরক্ত হরিশ্চন্দ্র। রাতেই তিনি পুলিশে খবর দেন। চুরির অভিযোগ পেয়ে ছুটে আসে পুলিশ। এলাকাবাসীও আতঙ্কিত এমন চুরির খবর পেয়ে। ফারাক্কা ব্যারেজে প্রচুর সিআইএসএফ নিযুক্ত রয়েছে, তা সত্ত্বেও এলাকার নিরাপত্তা প্রশ্নের মুখে।

আরও পড়ুন: ক্যানিংয়ের তিন তৃণমূল নেতা খুনের ঘটনায় ফের গ্রেফতার, এখনও অধরা মূল অভিযুক্ত

You might also like