Latest News

লক্ষ্য তেলেঙ্গানা, হায়দরাবাদে বিজেপির জাতীয় কর্মসমিতির বৈঠক শুরু কাল, পরশু মোদীর সভা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কাল শনিবার থেকে হায়দরাবাদে বসতে চলেছে বিজেপির (BJP) দু’দিনের জাতীয় কর্মসমিতির বৈঠক। আগামীকাল দুপুরে বৈঠকের উদ্বোধন করবেন বিজেপি সভাপতি জেপি নাড্ডা (JP Nadda)। নিজামের শহরে পরশু জনসভায় ভাষণ দেওয়ার কথা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর (Narendra Modi)। প্রধানমন্ত্রীর সভায় ভিড় অতীতের সব নজির ছাপিয়ে যাবে, দাবি তেলেঙ্গানা (Telengana) বিজেপির।

শহরের একটি অত্যাধুনিক কনভেনশন সেন্টারে সভার আয়োজন করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী মোদী এবং বিজেপি সভাপতি নাড্ডা ছাড়াও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ (Amit Shah), বিজেপি শাসিত ১৭ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীসহ বহু ভিভিআইপি আজ থেকে সোমবার পর্যন্ত হায়দরাবাদে থাকবেন। তাঁদের নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে কনভেনশন সেন্টারের চারপাশে পাঁচ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে ১৪৪ ধারা জারি করেছে হায়দরাবাদ পুলিশ। ওই এলাকায় ড্রোন ওড়ানোও নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে পুলিশ।

কর্মসমিতির বৈঠকে বিজেপি নীতিগত বিষয় ছাড়াও আশু রাজনৈতিক কর্তব্য, কৌশল ঠিক করে থাকে। এবারের বৈঠকে অভিন্ন দেওয়ানি বিধির প্রসঙ্গ উঠতে পারে বলে দলের একটি মহলের ধারণা। তবে এই ব্যাপারে কোনও সিদ্ধান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কম। বছর শেষে গুজরাত ও হিমাচলপ্রদেশে বিধানসভা ভোট। সেই ভোট নিয়ে আলোচনা হবে। ওই দুই রাজ্যই বিজেপির দখলে। তবে হায়দরাবাদে জাতীয় কর্মসমিতির বৈঠকে প্রাধান্য পাবে তেলেঙ্গানাই। বিজেপির দক্ষিণের রাজ্যগুলির মধ্যে কর্নাটক ছাড়া আর কোনও রাজ্যে বিজেপি এখনও ক্ষমতা দখল করতে পারেনি। দল মনে করছে, তেলেঙ্গানায় সেই সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে।

শাসক দল তেলেঙ্গানা রাষ্ট্র সমিতির শাসনের বিরুদ্ধে মানুষের ক্ষোভকে কাজে লাগিয়ে দক্ষিণে দ্বিতীয় রাজ্য বিজয়ের লক্ষ্যে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী-সহ বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব উঠে পড়ে লেগেছে। মে মাসে মোদী, অমিত শাহ এবং নাড্ডা ওই রাজ্য সফর করেছেন। সেখানে বিজেপির বিরোধী পক্ষ শাসক দল টিআরএস এবং প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেস। কিন্তু মে মাসের সফরে তেলেঙ্গানার মাটিতে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী কংগ্রেসকে তুলোধনা করে দাবি করেছেন, বিধানসভা ভোটের আগেই বিজেপি নিজেদের প্রধান বিরোধী দল হিসাবে তুলে ধরতে পেরেছে। আগামী বছর এ রাজ্যে সরকার বদল অবশ্যম্ভাবী। সরকার গড়বে বিজেপি। একই দাবি করেছেন অমিত শাহ ও নাড্ডা।

BJP

বিগত কয়েক মাস যাবৎ তেলেঙ্গানার কে চন্দ্রশেখর রাও সরকারের সঙ্গে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরোধ অবিজেপি শাসিত বাকি রাজ্যগুলিকে ছাপিয়ে গিয়েছে। বিজেপির সঙ্গে দূরত্ব তৈরি করতে মুখ্যমন্ত্রী রাও রাজ্য সফরে যাওয়া প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে এক মঞ্চে ওঠা দূরে থাক, বিমানবন্দরে স্বাগত বা বিদায় জানাতে যাওয়ার সৌজন্যও বর্জন করেছেন।

আরও পড়ুন: নূপুর শর্মার মুখে ঝামা ঘষে দেওয়া বিচারপতির অজানা কথা

বিজেপির জাতীয় কর্মসমিতির বৈঠক ঘিরে হায়দরাবাদের গত কয়েকদিনের ছবিতে কেসিআর ও মোদী-কে সামনে রেখে দুই শিবিরের সাপে-নেউলে সম্পর্ক স্পষ্ট। শহরের আনাচেকানাচে পাশাপাশি মোদী ও কেসিআরের ছবিতে অস্তিত্ব জানান দেওয়ার চেষ্টা প্রকট। বিজেপির অভিযোগ, তারা হায়দরাবাদ ও আশপাশে প্রধানমন্ত্রীর ছবি-সহ হোর্ডিং দিতে গিয়ে জানতে পারেন তেলেঙ্গানা সরকার সেগুলি আগে থেকে বুক করে রেখেছে। বাধ্য হয়ে পরিকল্পনা বদল করে শহরের অলিগলিতে ছবি সাঁটা হয়েছে। সব জায়গাতেই টিআরএস সমর্থকেরা কেসিআর-এর ছবি সেঁটে দিয়েছে।

আরও পড়ুন: উদয়পুরের খুনি রিয়াজের বাইকে ২৬১১! রীতিমতো কাঠখড় পুড়িয়ে মিলেছিল এই নম্বর

You might also like