Latest News

সাফাইকর্মী থেকে ব্যাঙ্কের এজিএম, প্রতীক্ষার জীবন যেন রূপকথার মতো

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সাফাইকর্মী (Sweeper) হয়ে একদিন পা রেখেছিলেন মুম্বইয়ের (Mumbai) স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়াতে (SBI)। ৩৭ বছর পর যখন চাকরি থেকে অবসর নেওয়ার সময় হয়েছে তখন তিনি অ্যাসিস্ট্যান্ট জেনারেল ম্যানেজার (AGM)। গল্প নয়, সত্যি! এ এমন সত্যি, যা গল্প হলেও মানতে একটু অসুবিধা হত। মনে হত, গল্পের গরু গাছে উঠে পড়েছে। কিন্তু এখানে তেমনটা ভাবার কোনও অবকাশই নেই। কারণ এই ঘটনা তো দিনের আলোর মতো সত্যি।

মুম্বইয়ের বাসিন্দা প্রতীক্ষা টন্ডওয়ালকার। দশম শ্রেণিতে পড়তে পড়তে তাঁর বিয়ে হয় স্টেট ব্যাঙ্কের চতুর্থ শ্রেণির কর্মী সদাশিব কাডুর সঙ্গে। শেষ হয় পড়াশোনা। বিয়ের চার বছর পর এক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারান তাঁর স্বামী। স্বামীর মৃত্যুর পর সাফাইকর্মী হিসাবে স্টেট ব্যাঙ্কে যোগ দেন তিনি। ততদিনে প্রতীক্ষা একরত্তি সন্তানের মা।

দিনে সাফাইয়ের কাজ, রাতে সন্তান কোলে চলতে থাকে পড়াশোনা। মাধ্যমিকের গণ্ডিটা যে এবার তাঁকে পেরোতেই হবে। চলতে থাকে লড়াই। ৬০% নম্বর নিয়ে মাধ্যমিক পাশ করলেন প্রতীক্ষা।

এরপর তিনি ভর্তি হলেন নাইট কলেজে। উচ্চমাধ্যমিক পাশ করে সাফাইকর্মী থেকে হলেন কেরানি। কিন্তু চলতে থাকে পড়াশোনা। নিজেকে প্রমাণ করার লড়াই তখনও জারি। মনোবিজ্ঞানে স্নাতক হলেন প্রতীক্ষা। ১৯৯৩ সালে দ্বিতীয়বার বিয়ে করেন তিনি।

ব্যাঙ্ককর্মী প্রমোদ টন্ডওয়ালকারের সঙ্গে শুরু হয় তাঁর নতুন বিবাহিত জীবন। দুটি সন্তান হয় তাঁদের। প্রতীক্ষা জানিয়েছেন, প্রমোদের উৎসাহেই তাঁর এই এগিয়ে চলা। ২০২০ সালে তিনি হলেন স্টেট ব্যাঙ্কের এজিএম। ৩৭ বছরের লড়াই সার্থক।

টুইটারে এই ঘটনার কথা শেয়ার করতেই তা মুহূর্তের মধ্যে ভাইরাল হয়ে যায়। প্রতীক্ষা হয়ে ওঠেন অদম্য উৎসাহের এক রূপকথা।  

মোনালিসাকে সরাতে হবে, আসানসোলে বিশ্ববিদ্যালয় গেটে বিক্ষোভ বিজেপির

You might also like