Latest News

বর্ধমান মেডিকেল কলেজের ছাদ থেকে পড়ে মৃত্যু হবু ডাক্তারের, আত্মহত্যা না খুন? ধন্দ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বর্ধমান মেডিকেল কলেজে ছাদ থেকে পড়ে মৃত্যু হল এক হবু ডাক্তারের। মেডিকেল কলেজের সার্জারি বিভাগে পাঠরত ছিলেন তিনি। ইন্টার্নশিপও শেষ হয়েছিল। কিন্তু ডাক্তার হওয়া হল না। তিন তলার ছাদ থেকে পড়ে মৃত্যু হল তাঁর।

জানা গেছে মৃত ছাত্রের নাম শেখ মোবারক হোসেন। তিনি বর্ধমানের নাদনঘাটের বাসিন্দা। বুধবার ভোর রাতে হোস্টেলের তিনতলার ছাদ থেকে পড়ে তাঁর মৃত্যু হয় বলে অনুমান। তবে আত্মহত্যা না খুন সে নিয়েই জাগছে সংশয়। তদন্তের আর্জি জানায় ছাত্রের পরিবার।

চলতি মাসের ১৫ আগস্ট কাউন্সেলিং এর পর হাউসস্টাফ হিসেবে যোগ দেবার কথা ছিল মোবারকের। উজ্জ্বল ভবিষ্যতের হাতছানি ফেলে কীভাবে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লেন তিনি তা ভেবে পাচ্ছেন না সহপাঠীরাও। মেডিকেল কলেজের ইমারজেন্সি ওয়ার্ডে মোবারকের চিকিৎসা চলে। তারপর আই সি ইউতে স্থানান্তরের পরই মৃত্যু হয় তাঁর।

মোবারকের সহপাঠী শাহ আলম জানান, বুধবার ভোররাতে হঠাৎই একটা আওয়াজ পান। হোস্টেলের ঘর থেকে বেরিয়ে এসে দেখেন উপুড় হয়ে পড়ে আছে মোবারকের দেহ। তাঁর অনুমান, ছাদ থেকে লাফিয়ে পড়ে আত্মহত্যা করেছেন মোবারক। যদিও কারণ অজ্ঞাত।

খবর পেয়ে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আসেন মোবারকের পরিবার। বাবা শেখ হাফিজুল ইসলাম জানান, হাসপাতাল থেকে ফোন করে জানানো হয়েছিল ছেলের অবস্থা খারাপ। এসে দেখেন মৃত্যু হয়েছে ছেলের।

পরিবারের সন্দেহ ছেলেকে খুন করা হয়েছে। ছেলের দেহে আঘাতের চিহ্ন দেখতে পেয়েছেন বলে দাবি করেছেন তাঁরা।

পরিবার সূত্রে খবর, মোবারকের সঙ্গে একটি মেয়ের বিয়ের কথাবার্তা পাকা হয়ে গেছিল। পরিবারে এখন খুশির হাওয়া, তারই মধ্যে এমন মর্মান্তিক ঘটনায় হতবাক সকলেই।

মোবারকের মামা সফিকুল হাসানের দাবি, কারও সঙ্গে মোবারকের শত্রুতা ছিল কিনা তা জানেন না। তবে আত্মহত্যা করতে পারেন না মোবারক। তাঁকে পরিকল্পিত ভাবে খুন করা হয়েছে বলেই অনুমান।

ঘটনায় তদন্তের আর্জি জানিয়েছে মোবারকের পরিবার। শোক প্রকাশ করেছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষও। অনেক চেষ্টা করেও তাঁরা বাঁচাতে পারেননি মোবারককে।

পড়ুয়ার মৃত্যু ঘিরে এখন থমথমে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ। যতক্ষণ না তাঁর মৃত্যু রহস্যের কিনারা হচ্ছে অস্বস্তিতে সহপাঠীরাও।

You might also like