Latest News

ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করলে কঠোর সাজা, হুঁশিয়ারি হাসিনার

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বাংলাদেশের (Bangladesh) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা (Sheikh Hasina) বলেছেন, কেউ কারও ধর্মীয় অনুভূতিতে (religious sentiments) আঘাত করলে কঠোর সাজার মুখে পড়তে হবে। একই সঙ্গে তিনি বলেছেন, এই ধরনের ঘটনাকে বড় করে প্রচার করার থেকে সরকারের গৃহীত পদক্ষেপ গুলি বেশি করে প্রচার করা হোক।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঢাকার ঢাকেশ্বরী মন্দির প্রাঙ্গণে সমবেত দর্শনার্থীদের সঙ্গে গণভবন থেকে ভার্চুয়াল মাধ্যমে কথা বলেন। গতকাল ভোর রাতেই তিনি ১৮ দিনের বিদেশ সফর শেষ করে ঢাকা ফিরেছেন।

Image - ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করলে কঠোর সাজা, হুঁশিয়ারি হাসিনার

হাসিনা বলেন, ‘কেউ কোনও ধর্মের অনুভূতিতে আঘাত দিতে পারবে না। কারও ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত লাগে এমন কিছু কেউ বলতে পারবে না। এটা যে কোনও ধর্মের জন্যই প্রযোজ্য। কারণ, এটা কারও বিশ্বাস, ঈশ্বরের প্রতি বিশ্বাস।’

ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দির প্রাঙ্গণে দুর্গাপুজো উপলক্ষে সে দেশের হিন্দু সম্প্রদায়েরর সদস্যদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময়কালে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘দেশের কোনও এলাকায় সংগঠিত কোনও ঘটনাকে বড় করে দেখাবেন না, বরং আপনাদের সবার কাছে আমার অনুরোধ ওই ঘটনার বিরুদ্ধে সরকারের শাস্তিমূলক ব্যবস্থার দিকে নজর দিন।’

তাঁর কথায়, সরকার সর্বদা দেশের অসাম্প্রদায়িক চেতনাকে সমুন্নত রাখার চেষ্টা করছে।

প্রসঙ্গত, গতবছর বাংলাদেশের কুমিল্লায় কোরান অবমাননার ভুয়ো অভিযোগে সাম্প্রদায়িক অশান্তি তৈরি করা হয়। বেশ কিছু মন্দির ও মণ্ডপ আক্রান্ত হয়। হতাহত হন বেশ কয়েকজন।

তেমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি আটকাতে বাংলাদেশ সরকার এবার বেশ কিছু পদক্ষেপ করে। অতিরিক্ত নিরাপত্তা বাহিনী মোতায়েন করা ছাড়াও নজরদারিতে আছে স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী। এ বছর পুজোয় অশান্তির খবর নেই।

হাসিনার হুঁশিয়ারি কাউকে কারও ধর্মীয় বিশ্বাসে আঘাত করতে দেওয়া হবে না। ধর্ম হল একজনের বিশ্বাস। আমাদের সেই চেতনা নিয়েই চলতে হবে।’

কুমিল্লার ঘটনার প্রসঙ্গ উহ্য রেখেই তিনি বলেন, ইসলাম একটি অত্যন্ত উদার ও মহৎ ধর্ম এবং ইসলামে অন্য সব ধর্মের প্রতি সম্মান প্রদর্শনের নির্দেশ রয়েছে।

You might also like