Latest News

‘কে এস এ’ পালিয়ে গেছেন, ‘ডি’ তো ফোন ধরছেন না, তথাগতর নিশানায় কারা?

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বাংলায় ভোটের ফল ঘোষণার পর থেকেই তিনি রাজ্য ও কেন্দ্রীয় নেতাদের বিরুদ্ধে সরব। টুইটারে বিরামহীন সমালোচনা করেই চলেছেন তিনি। এবার সেই বর্ষীয়ান বিজেপি নেতা তোপ দাগলেন, তবে সংকেতে!

কী বলেছেন তথাগতবাবু?

টুইটারে তিনি লিখেছেন, “ঘনিষ্ঠ একজন এসে খুব কান্নাকাটি করছিলেন। তিনি বলছিলেন, বিজেপির হয়ে ভোটে কাজ করা হাজার হাজার মানুষ তৃণমূলের চাপে ঘরছাড়া। অনেকে ঘরে ফিরছেন স্থানীয় শাসক নেতাদের জরিমানা দিয়ে। কাকে তিনি এসব বলবেন? কে এস এ পালিয়ে গেছেন। ডি ফোনই ধরছেন না।”

এখন প্রশ্ন হল এঁরা কারা?

তথাগতবাবু নাম বলেননি। তবে বিজেপির অনেকে বলছেন, তিনি নাম না বললেও পুরোটাই স্পষ্ট। কে-কৈলাস, এস-শিবপ্রকাশ, এ-অমিত মালব্য এবং ডি-দিলীপ ঘোষ।

ত্রিপুরা ও মেঘালয়ের প্রাক্তন রাজ্যপাল ভোটের পর থেকেই বাংলার দায়িত্বে থাকা কেন্দ্রীয় নেতাদের বিরুদ্ধে সরব। সে প্রার্থী নির্বাচন করা হোক বা প্রচারের কৌশল—সব নিয়েই কৈলাস, শিবপ্রকাশদের বিরুদ্ধে এর আগে নাম করেই সমালোচনা করেছিলেন তথাগতবাবু। তাঁর মোদ্দা কথা, এই নেতারা বাংলা সম্পর্কে কিচ্ছু জানেন না। তাঁরাই ভোটের আগে এসে ভাবলেন সব বুঝে ফেলেছি। সব করে ফেলব। কারও কথাই শোনা হয়নি।

তা ছাড়া বাংলা বিজেপির অন্দরে তথাগত-দিলীপ ঘোষ দ্বন্দ্ব সুবিদিত। কয়েকদিন আগে রাজ্য সভাপতির শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়েও প্রশ্ন তুলে সমালোচনা করেছিলেন তথাগত রায়। তা ছাড়া ত্রিপুরার একাধিক সংবাদমাধ্যমে দু’দিন আগে তথাগতবাবু বলেছেন, আগ্রাসী হিন্দি ভাষণই বাংলার ভোটে বিজেপিকে ডুবিয়েছে। তাঁর কথায়, প্রধানমন্ত্রী বা কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এসে হিন্দিতে বক্তৃতা করলেন সেটা একরকম। কিন্তু বাংলায় ভোটের প্রচারে গোটা দেশের বিজেপি বিধায়ক, মন্ত্রীদের হাজির করানো হয়েছিল। তাঁরা পাড়ার মোড়ে মোড়ে হিন্দিতে বক্তৃতা করেছেন। বাঙালিকে যা ছুঁতেই পারেনি।

ভোটের পর থেকেই রাজ্য বিজেপি অনেকটা ভাঙা হাটের মতো। যে নেতারা ভোটের আগে যোগ দিয়েছিলেন, ভোটে প্রার্থী হয়েছিলেন তাঁদের অনেকেরই টিকি দেখা যাচ্ছে না। আর এদিকে তথাগত রায় তোপ দেগেই চলেছেন। অবিরাম।

You might also like