Latest News

Tapasi Malik CBI: তাপসী ধর্ষণে অভিযুক্ত সুহৃদ বলছেন, ‘সিবিআই কিচ্ছু করবে না’, পায়ে ক্ষত নিয়ে বিছানায় সিপিএম নেতা

শোভন চক্রবর্তী, সিঙ্গুর

বিরাট গেট। লম্বা উঠোন। গেটের ঠিক ডানদিকে প্রকাণ্ড আম গাছ। উঠোন পেরিয়ে ঢুকতেই তুলসী বেদিতে জল দিতে দিতে এক মহিলা জানতে চাইলেন, কী ব্যাপার? আরও কিছুটা এগিয়ে বলা হল, কার খোঁজে সেই বাড়িতে যাওয়া। নাম বলতেই ওই মহিলা ডাক দিলেন, ‘দিদি…সেজদার সঙ্গে দেখা করতে এসেছে গো!’ এক বয়স্ক মহিলা বললেন, উপরের ঘরে যান, শুয়ে রয়েছে।

কথা বলতে পারবেন? ন্যুব্জ মহিলা হাতে বাসন নিয়ে বললেন, “ওই যা পারে আর কী! যান!”

Image - Tapasi Malik CBI: তাপসী ধর্ষণে অভিযুক্ত সুহৃদ বলছেন, ‘সিবিআই কিচ্ছু করবে না’, পায়ে ক্ষত নিয়ে বিছানায় সিপিএম নেতা
সুহৃদ দত্তর বাড়ি

সিঁড়ি দিয়ে উপরের বারান্দা। দু’পা এগোতেই বাঁদিকে বেশ বড় একটা ঘর। জানলা দিয়ে বিছানায় রোদ এসে পড়েছে। শীর্ণকায় এক বৃদ্ধ কাত হয়ে শুয়ে রয়েছেন রোদ এড়িয়ে। পরনে লুঙ্গি। খালি গা। চুলগুলো উস্কোখুস্কো। আর দু’পা জুড়ে ঘা। হাতের কাছেও চামড়া উঠে উঠে রক্ত বেরোচ্ছে।

বৃদ্ধের নাম সুহৃদ দত্ত। সিঙ্গুরের তাপসী মালিক ধর্ষণ ও খুনের মামলায় সিপিএমের এই নেতাই সিবিআইয়ের হাতে গ্রেফতার হয়েছিলেন (Tapasi Malik CBI)। দেড় দশক হয়ে গেল। সেই মামলা এখনও চলছে।

বৃদ্ধ সুহৃদ দত্ত বিছানাতেই বসালেন। ‘খবরটবর দেখেন? কাগজ পড়েন?’ প্রশ্নটা শুনে বালিশ থেকে মাথাটা তোলার চেষ্টা করলেন বৃদ্ধ। ভাঙা ভাঙা গলায় বললেন, “ওই যতটুকু পারি!”

‘জানেন কি হাঁসখালি ধর্ষণ মামলায় সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে?’ বললেন, “হুমম, জানি। আজ সকালে জানলাম।” ‘আর আপনাদের মামলাটা? তাপসী মালিক ধর্ষণ কাণ্ড?’…কথা শেষ করার আগেই সুহৃদ বলে উঠলেন, “ও কিছু হবে না। কিছু হওয়ার নেই।”

জানতে চাইলাম, ‘তা হলে সিবিআই? তদন্ত?’

পায়ের ঘা দেখিয়ে বললেন, “এই তো, সিবিআই করেছে।”

Image - Tapasi Malik CBI: তাপসী ধর্ষণে অভিযুক্ত সুহৃদ বলছেন, ‘সিবিআই কিচ্ছু করবে না’, পায়ে ক্ষত নিয়ে বিছানায় সিপিএম নেতা

তাপসী মালিক মামলায় দু’মাস ১৯ দিন সিবিআই হেফাজতে ছিলেন সুহৃদ দত্ত। তখন তাঁকে একবার লাই ডিটেক্টরের সামনে বসানো হয়েছিল। সুহৃদবাবুর দাবি, তাঁর থেকে অনুমতি না নিয়েই তা করা হয়েছিল। বললেন,“সেই সময়ে কী সব কেমিক্যাল দিয়েছিল কে জানে, তার পর থেকেই পায়ের এই অবস্থা”।

ঠিক কী হয়েছিল তখন?

সুহৃদ দত্ত বললেন, “ওরা (পড়ুন সিবিআই) আমাকে কারখানার গেট থেকে তুলে নিয়ে গিয়েছিল। তারপর একদিন হঠাৎ সেন্সলেস হয়ে গেলাম। যখন জ্ঞান এল, তখন দেখলাম আমার পায়ের এই অবস্থা।”

‘তাপসী বিচার পায়নি, হাঁসখালির মেয়েটিও পাবে না’, সিবিআই তদন্তে হতাশ সিঙ্গুরে ধর্ষিতার বাবা মনোরঞ্জন

সিপিএম সেই সময়ে দাবি করেছিল, সুহৃদ দত্তকে মিথ্যে মামলায় ফাঁসানো হয়েছে। ওই সময়ে হুগলি জেলা সিপিএম ‘সিঙ্গুর ষড়যন্ত্র মামলা’ নাম দিয়ে কুপন ছাপিয়ে আইনি লড়াইয়ের তহবিলও সংগ্রহ করেছিল। আর এখন বাংলায় একের পর এক ঘটনায় যখন সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিচ্ছে আদালত, তখন তাপসী ধর্ষণের অন্যতম অভিযুক্ত বৃদ্ধ সুহৃদ দত্ত বলছেন, কিচ্ছু হবে না।

তাপসী মালিকের বাবা মনোরঞ্জন মালিকও একই কথা বলেছেন এদিন। তাঁর কথায়, “১৫ বছর হয়ে গেল। কী করল সিবিআই? কিছু করতে পারল কি? আপনারাই বলুন না! আমি তো বিচার পেলাম না। তাপসীও পেল না!”

নির্যাতিতার বাবা আর অন্যতম অভিযুক্ত—দুজনেরই একই, বক্তব্য। মিলে যাচ্ছে। ফারাক শুধু এ টুকুই যে, মনোরঞ্জন সিবিআইয়ের উপর আস্থা হারিয়েছেন। আর সুহৃদ দত্ত মনে করেন, সেই সময়ে সিবিআইকে ব্যবহার করা হয়েছিল। হ্যাঁ এটুকুই।

সুহৃদবাবু গুরুতর অসুস্থ। তাঁকে জিজ্ঞেস করা হল, পার্টি খবর নেয়? জবাব দিলেন, “নেয়, মাঝে মাঝে”।

You might also like