Latest News

তৃণমূল বিধায়কের বাড়ি থেকে যুবকের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার, চাঞ্চল্য বাসন্তীতে

বর্ষীয়ান বিধায়ক বলেন, “ওর বাবা-মা খুন হয়ে যাওয়ার পর ওকে নাবালক অবস্থা থেকে মানুষ করছিলাম। পড়াশোনা শিখিয়েছি এত দূর। চাকরির পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিল। কেন এমন করল বুঝতেই পারছি না।”

দ্য ওয়াল ব্যুরো, দক্ষিণ ২৪ পরগনা: গোসাবার তৃণমূল বিধায়ক জয়ন্ত নস্করের প্রাসাদোপম বাড়ি থেকে উদ্ধার হল এক যুবকের ঝুলন্ত দেহ। যা নিয়ে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে বাসন্তীতে।

মৃতের নাম লাবণ্য হালদার (২৩)। জানা গিয়েছে, বাম জমানায় সিপিএম আশ্রিত দুষ্কৃতীদের হাতে খুন হয়েছিলেন লাবণ্যর বাবা ও মা। সেই সময়ে লাবণ্যর বয়স ছিল ১১ বছর। নাবালক লাবণ্যর দেখভালের দায়িত্ব নিয়েছিলেন জয়ন্তবাবু। এদিন সকালে বাসন্তী থানার চুনখালির বগুলাখালি গ্রামে জয়ন্তবাবুর বাড়ির একটি ঘর থেকে লাবণ্যর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

জানা গিয়েছে, গ্র্যাজুয়েশন শেষ করার পর সোনারপুরে একটি ভাড়া বাড়িতে থেকে সরকারি চাকরির জন্য পড়াশোনা করছিলেন লাবণ্য। দশ-বারো দিন আগে তিনি ফিরেছিলেন বাসন্তীর গ্রামে। বিধায়কের পরিবারের তরফে জানানো হয়েছে, বুধবার রাতে খাওয়াদাওয়া করে নিজের ঘরে শুতে চলে গিয়েছিলেন লাবণ্য। সকালে বাড়ির পরিচারিকা অনেকবার দরজা ধাক্কা দিলেও কোনও সাড়াশব্দ পাওয়া যায়নি। এরপর জয়ন্ত নস্কর খবর দেন বাসন্তী থানায়। বিরাট পুলিশবাহিনী আসে বিধায়কের বাড়িতে। দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে পুলিশ দেখে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে গামছার ফাঁস দিয়ে ঝুলছে লাবণ্যর দেহ।

দেহ নামিয়ে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে পুলিশ। বাসন্তী থানার তরফে বলা হয়েছে, কী কারণে এই মৃত্যু তার তদন্ত শুরু হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসার পরই তা প্রাথমিক ভাবে বোঝা যাবে।
বর্ষীয়ান জয়ন্তবাবু বলেন, “ওর বাবা-মা খুন হয়ে যাওয়ার পর ওকে নাবালক অবস্থা থেকে মানুষ করছিলাম। পড়াশোনা শিখিয়েছি এত দূর। চাকরির পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিল। কেন এমন করল বুঝতেই পারছি না।” একথা বলতেই বলতেই কান্নায় ভেঙে পড়েন জয়ন্তবাবু।

You might also like