Latest News

পুজোর আগে দোকান খোলায় বিধিনিষেধ চান না বর্ধমানের ব্যবসায়ীরা, স্মারকলিপি দিলেন জেলাশাসককে

জেলা প্রশাসনের এক আধিকারিক জানান, এই বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যেই ভাবনাচিন্তা শুরু হয়েছে। পুজোর আগে দোকান বন্ধ না রেখে কী ভাবে ভিড় এড়ানো সম্ভব তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

দ্য ওয়াল ব্যুরো, পূর্ব বর্ধমান: লকডাউন হলে লকডাউন মানবেন। কিন্তু আর সামনের দু’মাসে দোকান খোলার জন্য কোনও বিধি নিষেধ আরোপ করা যাবে না। মঙ্গলবার পূর্ব বর্ধমানের জেলাশাসক বিজয় ভারতীর কাছে এমনই আবেদন রাখলেন বর্ধমান শহরের ব্যবসায়ী সংগঠনের সদস্যরা।

বর্ধমান শহর তো বটেই, গোটা জেলায় কোভিডের গ্রাফ ঊর্ধ্বমুখী। তাই সংক্রমণের রাশ টানতে কখনও লকডাউন তো আবার কখনও বর্ধমান শহর ও শহরতলির দোকানপাট খোলার সময়সীমা বেঁধে দিচ্ছে প্রশাসন।

এদিন ব্যবসায়ী সুরক্ষা সমিতির পক্ষ থেকে আবেদনে বলা হয় সামনের সেপ্টেম্বর ও অক্টোবর পুজোর মাস। এই দু’মাসে ব্যবসা ভালো হয়। ব্যবসায়ীরা পুজোর মাসের জন্য অপেক্ষা করে থাকেন। সুতরাং এই দু’মাস একেবারে স্বাভাবিক নিয়মে দোকান খুলতে দেওয়া হোক। কোভিডের জন্য ব্যবসা বাণিজ্যের অবস্থা খুবই খারাপ। টানা তিন মাস ধরে লকডাউনের জন্য সব ধরনের ব্যবসা মার খেয়েছে। তারপর দীর্ঘ ছ’মাস ট্রেন চলাচল বন্ধ। বাসও ঠিক মতো চলছে না। বর্ধমান শহরের দোকানপাট খুললেও সেই হারে কেনাকাটার লোকজন নেই। আবার অন্যদিকে বর্ধমান শহরে কোভিডে আক্রান্তের সংখ্যা হুহু করে বেড়ে যাওয়ায় শহরে লকডাউনের সিদ্ধান্ত নেয় জেলা প্রশাসন। আর এখন শহরের দোকানপাট খোলা বন্ধ রাখার জন্য নতুন বিধি নিষেধ আরোপ করা হয়েছে।

ব্যবসায়ী সুরক্ষা সমিতির সম্পাদক বিশ্বেশ্বর চৌধুরী বলেন, ‘‘লকডাউনের জন্য এবার চৈত্র সংক্রান্তিতে সেলের বাজার হয়নি। ব্যবসায়ীরা খুবই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। সারা বছরের মধ্যে পুজোর মাসে কেনাকাটা ভালো হয়। ব্যবসায়ীদের আয়ও বাড়ে। সুতরাং সামনের দু’মাস সেপ্টেম্বর ও অক্টোবর মাস একেবারে স্বাভাবিক নিয়মে দোকান খুলতে দেওয়া হোক। না হলে ব্যবসায়ীরা চরম বিপদে পড়বে। এমনিতেই ছ’মাস ধরে ব্যবসা বাণিজ্য সবই প্রায় বন্ধ। ব্যবসায়ীদের পাশাপাশি দোকান কর্মচারীরা ও তাদের পরিবার সবাই খুব কষ্টের মধ্যে আছে। সবদিক বিবেচনা করে দু’মাস দোকান পাট সব খোলা রাখতে হবে। তাহলে খানিকটা হলেও মন্দা বা অভাব অনটন কাটবে।’’

জেলা প্রশাসনের এক আধিকারিক জানান, এই বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যেই ভাবনাচিন্তা শুরু হয়েছে। পুজোর আগে দোকান বন্ধ না রেখে কী ভাবে ভিড় এড়ানো সম্ভব তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

You might also like