Latest News

বাবাকে বাঁচাতে গিয়ে হাওড়ার শ্যামপুরে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যু ২০ বছরের তরুণের

বছর ৪৬ এর উত্তম মান্না পেশায় ভেটারিনারি চিকিৎসক। বিডিও অফিসে চাকরি করেন তিনি। তাঁর ছেলে ইলাবন্তও ভেটেরিনারির দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র।

দ্য ওয়াল ব্যুরো, হাওড়া: বাবাকে বাঁচাতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যু হল ছেলের। বুধবার দুপুরে শ্যামপুরের বকুলতলা এলাকায় এই মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে। মৃতের নাম ইলাবন্ত মান্না (২০)।

জানা গেছে, এদিন দুপুর সাড়ে বারোটা নাগাদ ছাদে কাপড় শুকানোর জন্য বাঁধা তার খুলতে গিয়েছিলেন উত্তম মান্না। অসাবধানতায় সেই তার গিয়ে পড়ে বাড়ির পাশ দিয়ে যাওয়া ১১ হাজার ভোল্টের ইলেকট্রিকের তারের উপর। বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন উত্তমবাবু। কাছেই ছিলেন তাঁর ছেলে ইলাবন্ত। ধাক্কা দিয়ে বাবাকে সরিয়ে দিতে পারলেও সঙ্গে সঙ্গে বিদ্যুতের ছোবলে অজ্ঞান হয়ে পড়ে যায় কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ওই তরুণ।

চিৎকার শুনে ছুটে এসে তাঁর মা ছেলেকে বাঁচানোর চেষ্টা করলে বিদ্যুতের ছোবলে জখম হন তিনিও। আর্ত চিৎকার শুনে পড়শিরা ছুটে আসেন। তিনজনকেই হাসপাতালে নিয়ে যান তাঁরা। সেখানে ইলাবন্তকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় উলুবেড়িয়ার একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে উত্তমবাবুর। প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হয় ইলাবন্তর মাকে।

বছর ৪৬ এর উত্তমবাবু পেশায় ভেটারিনারি চিকিৎসক। বিডিও অফিসে চাকরি করেন তিনি। তাঁর ছেলে ইলাবন্তও ভেটেরিনারির দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। পড়শিরা জানিয়েছেন, ১৩ বছর ধরে ওই এলাকায় থাকেন উত্তমবাবুরা। তাঁদের একতলা বাড়ি। এবার দোতলায় নির্মাণ কাজ শুরু হওয়ার কথা ছিল। তার জন্যই ছাদে লাগানো বাঁশ ও তার খুলতে গিয়েছিলেন। তাঁদের পরিবারে এমন দুর্বিপাক নেমে আসবে ভাবতেও পারেননি কেউ।

পুলিশ জানিয়েছে, ওই তরুণের দেহ ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার তদন্ত চলছে।

You might also like