Latest News

ফুড কুপনের দাবিতে মানিকচকে পরিযায়ী শ্রমিকদের তুমুল বিক্ষোভ

পরিযায়ী শ্রমিকদের তাঁদের অভিযোগ, বারবার প্রধানের কাছে ফুড কুপনের দাবি জানালেও কর্ণপাত করছে না প্রধান। বারবার তাদের পঞ্চায়েত অফিস থেকে ফেরত পাঠানো হচ্ছে। তাদের আরো অভিযোগ পঞ্চায়েত অফিসের সামনে বিক্ষোভ প্রদর্শন করতে এলে পুলিশ তাদের সেখান থেকে জোরপূর্বক সরিয়ে দিচ্ছে।

দ্য ওয়াল ব্যুরো, মালদহ: ফুড কুপনের দাবিতে উত্তাল হল মানিকচকের ধরমপুর। পরিযায়ী শ্রমিকদের বিক্ষোভে তুমুল উত্তেজনা ছড়ায় গোটা এলাকায়। পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তি বাধে। পরিযায়ী শ্রমিকরা পঞ্চায়েত অফিস চত্বর দখল করার চেষ্টা করে বলে অভিযোগ। পুলিশ সক্রিয় হয়ে সেখান থেকে তাঁদের হটিয়ে দেয়।

সোমবার সকাল থেকে ফুড কুপনের দাবিতে পঞ্চায়েত অফিসের সামনে জমা হতে থাকেন পরিযায়ী শ্রমিকরা। তাঁদের দাবি ধরমপুর গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় রয়েছেন আড়াই হাজারেরও বেশি পরিযায়ী শ্রমিক। কিন্তু এখনও পর্যন্ত মাত্র সাড়ে তিনশো  জন পরিযায়ী শ্রমিকের নামে ফুড কুপন দেওয়া হয়েছে। পরিযায়ী শ্রমিকদের অভিযোগ, করোনা পরিস্থিতিতে তাঁরা কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। সংক্রমণের ভয়ে কাজের জন্য ভিন রাজ্যে পাড়ি দিতে পারছেন না। এলাকায় একশো দিনের কাজও সম্পূর্ণ বন্ধ। পরিবারের মুখে দু’মুঠো অন্ন জোগাতে তাদের নাভিশ্বাস অবস্থা। প্রত্যেক পরিযায়ী শ্রমিককে ৩০ কেজি চাল ও ২ কেজি ছোলা দেওয়ার ঘোষণা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। সেই ঘোষণায় কিছুটা স্বস্তি পেয়েছিলেন তাঁরা। কিন্তু এখনও পর্যন্ত ফুড কুপন পাওয়া যায়নি।

তাঁদের অভিযোগ, বারবার প্রধানের কাছে ফুড কুপনের দাবি জানালেও কর্ণপাত করছে না প্রধান। বারবার তাদের পঞ্চায়েত অফিস থেকে ফেরত পাঠানো হচ্ছে। তাদের আরো অভিযোগ পঞ্চায়েত অফিসের সামনে বিক্ষোভ প্রদর্শন করতে এলে পুলিশ তাদের সেখান থেকে জোরপূর্বক সরিয়ে দিচ্ছে। পুলিশের বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগ তোলেন পরিযায়ী শ্রমিকরা।

তবে ধরমপুর পঞ্চায়েতের প্রধান নাহারুল শেখ বলেন, ‘‘বিডিও অফিসে পরিযায়ী শ্রমিকদের নামের তালিকা দিয়েছি আমরা। কিন্তু এখনও পর্যন্ত সাড়ে তিনশোর বেশি ফুড কুপন পাঠায়নি তারা। তাই আমরা সমস্ত পরিযায়ী শ্রমিকের হাতে এই কুপন তুলে দিতে পারিনি।’’ এ ব্যাপারে বিডিওর সঙ্গে এখনও যোগাযোগ করা যায়নি।

You might also like