Latest News

জল বাড়ছে কুলিক ও নাগর নদীতে, প্লাবিত রায়গঞ্জ শহর সংলগ্ন এলাকা

তরাই ডুয়ার্সেও ভারী বৃষ্টি চলছে। এরফলে জল বাড়ছে নদীগুলিতে। সেই জল নেমে আসছে। অন্যদিকে বাংলাদেশের সীমান্ত দিয়েও কুলিক-নাগরে জল ঢুকছে। তার উপর রায়গঞ্জেও চলছে ভারী বৃষ্টি। সব মিলিয়ে রায়গঞ্জের বন্যা পরিস্থিতি যে খারাপ হচ্ছে তা বলাই বাহুল্য।

দ্য ওয়াল ব্যুরো, উত্তর দিনাজপুর: লাগাতার বৃষ্টিতে বাড়ছে নাগর ও কুলিক নদীর জল। ইতিমধ্যেই রায়গঞ্জ ব্লকে পাঁচটি গ্রাম পঞ্চায়েতের বেশ কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। কয়েকটি গ্রামের রাস্তা ভেঙে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে যোগাযোগ ব্যবস্থা। প্রাণ বাঁচাতে ফ্লাড রেসকিউ সেন্টারে আশ্রয় নিচ্ছেন বাসিন্দারা।

কুলিক নদীর জলে প্লাবিত হয়েছে রায়গঞ্জ শহর সংলগ্ন আবদুলঘাটা, মনিপাড়া, ভট্টদিঘী সহ বিভিন্ন এলাকা। নদীর জল ঢুকে পড়েছে এইসব এলাকার বাসিন্দাদের বাড়ি ঘরে। বাধ্য হয়ে বাড়ি ছেড়ে কুলিক নদীর বাঁধের উপর আশ্র‍য় নিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। ছোট ছোট ছেলেমেয়ে, পরিবার পরিজন এবং গবাদি পশু নিয়ে নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে ছুটে চলেছেন রায়গঞ্জ শহর সংলগ্ন এলাকার বাসিন্দারা। স্থানীয় পঞ্চায়েত কর্তৃপক্ষ দুর্গত মানুষদের মধ্যে পলিথিন বিলি করেছেন।

রবিবার বিকালেই বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলায় জরুরি বৈঠক সেরেছেন রায়গঞ্জ ব্লক প্রশাসনের আধিকারিকরা। তরাই ডুয়ার্সেও ভারী বৃষ্টি চলছে। এরফলে জল বাড়ছে নদীগুলিতে। সেই জল নেমে আসছে। অন্যদিকে বাংলাদেশের সীমান্ত দিয়েও কুলিক-নাগরে জল ঢুকছে। তার উপর রায়গঞ্জেও চলছে ভারী বৃষ্টি। সব মিলিয়ে রায়গঞ্জের বন্যা পরিস্থিতি যে খারাপ হচ্ছে তা বলাই বাহুল্য।

ইতিমধ্যেই কুলিক ও নাগর নদীর জল বিপদসীমা ছুঁয়ে ফেলেছে। জারি হয়েছে লাল সতর্কতা৷ রায়গঞ্জ ব্লকের ভাতুন, জগদীশপুর, শীতগ্রাম, বাহিন ও গৌড়ী গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় ৫০ টির বেশি গ্রামে নদীর জল ঢুকেছে ৷ জলের তলায় চলে গেছে কয়েকশো হেক্টর চাষের জমি। বাহিন গ্রাম পঞ্চায়েতের ছিটমাধবপুর গ্রামের পাশে দু’দিক দিয়ে যাতায়াতের রাস্তা জলের তোড়ে ভেঙে গেছে ৷ ফলে কুমারজল, ছিটমাধবপুর গ্রামের যোগাযোগ প্রায় বিছিন্ন বলা যেতে পারে৷ গৌড়ী গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার নাগর নদীর পশ্চিম দিকের রায়গঞ্জ ব্লকের সীমান্তের গ্রাম ছোটো ভিটিয়ার, অনন্তপুর, গোয়ালদহর মতো গ্রামগুলোতেও জল ঢুকে পড়েছে ৷ নাগর নদীর পুর্ব দিকের ভিটিয়ার, পাড়ার পুকুর এই গ্রামগুলিতেও জলবন্দি মানুষজন। ইতিমধ্যেই প্লাবিত এলাকা থেকে মানুষরা ফ্লাড রেসকিউ সেন্টারে এসে আশ্রয় নিয়েছেন। এই অবস্থার মধ্যেই ফের বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া দফতর। ফলে বন্যার আশঙ্কায় ঘুম ছুটেছে বাসিন্দাদের।

রায়গঞ্জ পঞ্চায়েত সমিতির সহকারী সভাপতি মানষ ঘোষ জানিয়েছেন, রায়গঞ্জ ব্লক এলাকায় বন্যা পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। ব্লক প্রশাসন বন্যা পরিস্থিতির মোকাবিলায় প্রস্তুতি পর্বও সেরে ফেলেছে।

You might also like