Latest News

তছরুপের দায়ে গ্রেফতার জামবনির সেবাভারতী কলেজের প্রাক্তন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষা

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০১২ সালে ১ নভেম্বর থেকে ২০১৬ সালের ৩০ আগস্ট পর্যন্ত কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষার দায়িত্বে ছিলেন সুতপা। সুতপার পরে কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্বে আসেন বিনোদ চৌধুরি। কিন্তু বিনোদবাবুর অভিযোগ, তিনি কলেজের ক্যাশবুক, লেজার বই পরীক্ষা করে দেখেন সুতপাদেবী তার কার্যকালের মধ্যে কয়েক দফায় কলেজের উন্নয়নে বরাদ্দ প্রায় ৭৫ লক্ষ টাকা চেকের মাধ্যমে বেসরকারি ব্যাঙ্কের মাধ্যমে তোলেন। কিন্তু ওই টাকা কোথায় কিভাবে খরচ হয়েছে তার কোনও হদিশ কলেজে নেই।

দ্য ওয়াল ব্যুরো, ঝাড়গ্রাম: কলেজের ৭৫ লক্ষ টাকা তছরুপের অভিযোগে গ্রেফতার হলেন প্রাক্তন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষা সুতপা ঘোষ। ঝাড়গ্রাম জেলার জামবনি ব্লকের কাপগাড়ির সেবাভারতী মহাবিদ্যালয়ের প্রাক্তন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষা সুতপা ঘোষকে ঝাড়গ্রাম শহরের রঘুনাথপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। বছর তিনেক আগে তাঁর বিরুদ্ধে কলেজের উন্নয়নের বরাদ্দ ৭৫ লক্ষ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ ওঠে। কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ বিনোদ চৌধুরি ২০১৮ সালের ২ ফ্রেবুয়ারি সুতপার বিরুদ্ধে জামবনি থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। কিন্তু গত তিন বছর ধরে পুলিশ তাঁকে গ্রেফতারে গড়িমসি করছিল বলে অভিযোগ।

সুতপাও নিয়মিত কলেজে যাচ্ছিলেন। তাঁর আগাম জামিনের আবেদন খারিজ করে তদন্তের স্বার্থে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে জেরা করা প্রয়োজন বলে রায় দিয়েছিল হাইকোর্ট। অবশেষে এদিন তাঁকে পুলিশ গ্রেফতার করে।

ঝাড়গ্রাম আদালতের সিজেএম বিচারক এডুইন লেপচার এজলাসে তোলা হয় তাঁকে। তবে পুলিশ অবশ্য সুতপাকে হেফাজতে চেয়ে কোনও আবেদন করেননি। প্রতারণা ও সরকারি অর্থ তছরূপের জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা রুজু হওয়ায় সুতপার জামিনের আবেদন খারিজ করে তাকে ১২ দিন জেল হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন বিচারক।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০১২ সালে ১ নভেম্বর থেকে ২০১৬ সালের ৩০ আগস্ট পর্যন্ত কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষার দায়িত্বে ছিলেন সুতপা। সুতপার পরে কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্বে আসেন বিনোদ চৌধুরি। কিন্তু বিনোদবাবুর অভিযোগ, তিনি কলেজের ক্যাশবুক, লেজার বই পরীক্ষা করে দেখেন সুতপাদেবী তার কার্যকালের মধ্যে কয়েক দফায় কলেজের উন্নয়নে বরাদ্দ প্রায় ৭৫ লক্ষ টাকা চেকের মাধ্যমে বেসরকারি ব্যাঙ্কের মাধ্যমে তোলেন। কিন্তু ওই টাকা কোথায় কিভাবে খরচ হয়েছে তার কোনও হদিশ কলেজে নেই।

কলেজ সূত্রে জানা গিয়েছে, ২০১৬ সালের ৩১ মে কলেজের অ্যাকাউন্ট্যান্ট অবসর নেন। সুতপা তখন অ্যাকাউন্ট্যান্টের অতিরিক্ত দায়িত্ব নিজের হাতে নেন। জানা যায় ২০১৬ সালের ২ জুন ওই বেসরকারি ব্যাঙ্ক থেকে প্রথমে চেকের মাধ্যমে ৫০ লক্ষ টাকা তোলেন সুতপা। পরে ওই বছরের ১৫ জুলাই চেকের মাধ্যমে জনৈক করনশ্যাম সিংকে ৬ লক্ষ টাকা মিটিয়েছেন। ওই বছরের ১০ আগস্ট আরও দেড় লক্ষ টাকা তিনি জনৈক উদয় সিংকে চেক মারফত দেন। এছাড়াও কলেজের কোনও রেজোলিউশন ছাড়া আরও ১৭ লক্ষ টাকা তুলে নেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ। কলেজ সূত্রে জানা গিয়েছে, সুতপার বিরুদ্ধে পুলিশে মামলা রুজু করার আগে একাধিক বার কলেজের গভর্নিং বডি গায়েব হয়ে যাওয়া টাকার হদিশ জানতে চায়। কিন্তু সুতপা তার কোন সদুত্তর দেননি বলে অভিযোগ।

এরপর কলেজ কর্তৃপক্ষ সুতপার বিরুদ্ধে ২০১৮ সালের ৬ জানুয়ারি সাসপেনশন চিঠি ইস্যু করে। সুতপা পাল্টা ঝাড়গ্রামের দেওয়ানি আদালতে কলেজের বিরুদ্ধে মামলা করেন। ২০১৮ সালের ১৯ জানুয়ারি ঝাড়গ্রাম দেওয়ানি আদালতে কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ, গভর্নিং বডির সভাপতি, বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এবং ডিপিআই-এর বিরুদ্ধে মামলা করেন। দীর্ঘ দু’বছরের আইনী টানাপড়েনের পর অবশেষে গ্রেফতার করা হল অভিযুক্ত শিক্ষিকাকে।

You might also like