Latest News

সুন্দরবনে বাঘের আক্রমণে নিহত মৎস্যজীবীর দেহ মিলল জিলার জঙ্গলে

মঙ্গলবার জাল পাতার সময় ধরণীবাবুর উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে তাঁকে জঙ্গলে টেনে নিয়ে যায় একটি রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার।

দ্য ওয়াল ব্যুরো, দক্ষিণ ২৪ পরগনা: সুন্দরবনের জঙ্গলে বাঘের আক্রমণে নিহত মৎস্যজীবীর মৃতদেহ উদ্ধার করল বন দফতর ও পুলিশ। নিহত মৎস্যজীবীর নাম ধরণী মণ্ডল (৫০)।

মঙ্গলবার পাঁচজন মৎস্যজীবীর একটি দল সরকারি অনুমতি নিয়েই সুন্দরবনের জিলা জঙ্গল লাগোয়া খাঁড়িতে মাছ ধরতে গিয়েছিলেন। জাল পাতার সময় ধরণীবাবুর উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে তাঁকে জঙ্গলে টেনে নিয়ে যায় একটি রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার। ওই এলাকাটি সজনেখালি রেঞ্জ অফিসের মধ্যে। ধরণীবাবুকে বাঘে টেনে নিয়ে যাওয়ার পরেই মৎস্যজীবীদের দলটি বন দফতরের অফিসে এসে খবর দেন। তারপরেই ওই মৎস্যজীবীর খোঁজে তল্লাশি শুরু করেন ব্যাঘ্র প্রকল্পের কর্মীরা। বুধবার জিলার জঙ্গল থেকেই উদ্ধার হয় তাঁর দেহ।

ধরণীবাবুর বাড়ি সুন্দরবনের ছোট মোল্লাখালি উপকূলীয় থানার কুমিরমারি গ্রামে। সুন্দরবনের জঙ্গল এলাকায় খাঁড়িতে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করাই ছিল তাঁর পেশা। সেইমতো জঙ্গলে মাছ ধরতে গিয়েছিলেন সরকারি অনুমতি নিয়ে। বিপদ উপেক্ষা করে জীবিকার টানে প্রতিবারই যান। মাছ নিয়ে ফিরে আসেন ঘরে। সেই মাছ বিক্রি করে চালু থাকে সংসারের চাকা।  কিন্তু এবার আর ঘরে ফেরা হল না।  জঙ্গলের মধ্যে নদীর খাড়িতে জাল পাতার সময় আড়ালে লুকিয়ে থাকা বাঘ ঝাঁপিয়ে পড়ে তুলে নিয়ে যায় ওই মৎস্যজীবীকে।

চব্বিশ ঘণ্টা কাটতে না কাটতেই বুধবার উদ্ধার হয় তাঁর মৃতদেহ। এরপরেই দেহ ময়নাতদন্তের জন্য নিয়ে যান বন দফতরের কর্মীরা। ওই মৎস্যজীবীর মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমেছে কুমিরমারি গ্রামে। দিশাহারা হয়ে পড়েছেন ধরণীবাবুর পরিবার। জল-জঙ্গল ঘেরা সুন্দরবনে প্রতি মুহূর্তে বাঘ-সাপের সঙ্গে লড়াই করেই বেঁচে থাকেন মানুষ। প্রাণ হাতে করে মাছ-কাঁকড়া ধরতে যান। মধু আনতে যান জঙ্গলে। বিপদ তাই পায়ে পায়ে ঘোরে। ধরণীবাবুর মৃত্যুতে তাই পড়শিদের শোক ছাপিয়ে উঠছে বিপদের বার্তা।

 

You might also like