Latest News

রাজীব গান্ধী গণপিটুনির জনক! মোদীকে নিশানা করায় রাহুলকে পাল্টা বিজেপির

দ্য ওয়াল ব্যুরো: নরেন্দ্র মোদীকে (narendra modi) পিটুনির (lynching) প্রসঙ্গ তুলে ট্যুইটে খোঁচা দেওয়ার পর বিজেপি (bjp) রাহুল গান্ধীকে (rahul gandhi) পাল্টা তাঁর প্রয়াত পিতা রাজীব গান্ধীর (rajiv gandhi) নাম টেনে এনে আক্রমণ করল।  রাজীব গান্ধী গণপিটুনির জনক, বলল গেরুয়া শিবির (saffron camp)। রাহুল সম্প্রতি পাঞ্জাবে বিধানসভা ভোটের কয়েক মাস বাকি থাকতে পরপর দুটি ঘটনায় ধর্ম অবমাননার অভিযোগে দুজনকে পিটিয়ে হত্যার প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে বিদ্রুপ করে ট্যুইট করেন, ২০১৪র আগে বলতে গেলে পিটুনি শব্দটা শোনা যায়নি কখনও। সঙ্গে হ্যাশট্যাগ ধন্যবাদ আপনাকে মোদীজী।

কংগ্রেস শাসিত পাঞ্জাবে কয়েকদিন আগে স্বর্ণমন্দিরে গুরু গ্রন্থ সাহিব রাখার জায়গায় লাফিয়ে চলে যায় এক বছর কুড়ির ছেলে,  সোনার তরবারিও হাতে তুলে নেয়। উপস্থিত ধর্মগুরুরা তাকে নিরস্ত করতে ছুটে যান। তাকে পিটিয়ে মেরে ফেলা হয়। এর ২৪ ঘন্টার মধ্যেই কাপুরথালায় একটি লোককে  নিশান সাহিব সরানোর চেষ্টার অভিযোগে গ্রামবাসীরা হাতেনাতে ধরে ফেলে। তাকে পুলিশ নিজেদের হেফাজতে নিলেও মারমুখী উন্মত্ত জনতা তাকে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। তার মধ্যেই তাকে লাঠিপেটা করে একদল লোক। জখম লোকটি পরে হাসপাতালে মারা যায়।

এই দুই ঘটনা নিয়ে রাহুল মোদীকে নিশানা করায়  পাল্টা আসরে নামে বিজেপি।  দলের আইটি সেলের প্রধান অমিত মালব্য দাবি  করেন, কংগ্রেস তো ইন্দিরা গান্ধী হত্যাকাণ্ডের পর রক্তাক্ত শিখ নিধনযজ্ঞকে যুক্তিসঙ্গত বলে  দেখাতে চেয়েছিল। রাজীব গান্ধী বলেছিলেন, বড় গাছ পড়ে গেলে মাটি তো কেঁপে ওঠেই! মালব্য লেখেন, গণ পিটুনির জনক রাজীব গান্ধী শিখদের রক্তাক্ত গণহত্যাকে ন্যয্য বলেছিলেন।  ১৯৬৯ থেকে ১৯৯৩ সালের মধ্যে কংগ্রেস জমানায় সংঘটিত দাঙ্গার দীর্ঘ তালিকাও পেশ করেন মালব্য। লেখেন, এ তো সামান্য একটা তালিকা যাতে ১০০-র বেশি লোক মারা গিয়েছিল নেহরু-গান্ধী পরিবারের চোখের সামনে।

আরেক  কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অশ্বিনী চৌবেও ১৯৮৪ র হিংসায় কয়েকশো শিখ হত্যার প্রসঙ্গ তুলে বলেন, কয়েকজন কংগ্রেস নেতা তখনকার একাধিক মামলায় অভিযুক্ত ছিলেন। তাঁকে উদ্ধৃত করে সংবাদ সংস্থার বলেছে, শিখদের গলায় জ্বলন্ত টায়ার পরিয়ে মেরেছিল উন্মত্ত জনতা, ওটা পিটুনি হত্যা ছিল না!

 

You might also like