Latest News

বৈঠক ডেকেও হাজির হলেন না উপাচার্য, জট কাটল না শান্তিনিকেতনের পৌষমেলার

দ্য ওয়াল ব্যুরো, বীরভূম: পৌষমেলা (Poush Mela Shantiniketan 2022) নিয়ে বৈঠক ডেকেও নিজেই অনুপস্থিত থাকলেন বিশ্বভারতীর উপাচার্য। স্বাভাবিকভাবেই ভেস্তে গেল বৈঠক। এমন পরিস্থিতিতে সভা ছেড়ে বেরিয়ে গেলেন রাজ্যের মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিংহ ও জেলাশাসক বিধান রায়। অসন্তোষ প্রকাশ করে তাঁরা জানান, ফোন ধরার সৌজন্যও দেখাননি উপাচার্য। অবমাননা করেছেন তাঁদের। ফলে অনিশ্চিতই থাকল ঐতিহ্যবাহী পৌষমেলা।

পৌষমেলা (Poush Mela Shantiniketan 2022) নিয়ে শনিবার বিশ্বভারতীর কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সভাকক্ষে বৈঠক ডেকেছিলেন উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী। যথা সময়ে সেখানে উপস্থিত হয়েছিলেন রাজ্যের ক্ষুদ্র-মাঝারি ও কুটির শিল্প মন্ত্রী তথা বোলপুরের বিধায়ক চন্দ্রনাথ সিংহ, জেলাশাসক বিধান রায়, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সহ অন্যান্য আধিকারিকরা। বিশ্বভারতীর তরফে ছিলেন ভারপ্রাপ্ত কর্মসচিব অশোক মাহাত ও আরও কিছু আধিকারিক৷ কিন্তু বৈঠক ডেকেও যোগ দিতে আসেননি উপাচার্য।

জানা গিয়েছে, নিরাপত্তার অভাব বোধ করছেন, এই কারণ দেখিয়ে পূর্বপল্লীতে নিজের বাসভবন পূর্বিতা থেকে বের হননি তিনি। তাঁকে বৈঠকে আনার জন্য যান বোলপুর থানার আইসি ও শান্তিনিকেতন থানার ওসির নেতৃত্বে পুলিশ তাঁর বাড়িতে যান৷ তাও তিনি আসতে চাননি।

নদিয়ার স্কুলে ‘দুয়ারে সরকার’ শিবির, বাতিল মাধ্যমিক-উচ্চ মাধ্যমিকের টেস্ট

তাই প্রায় ৪৫ মিটিন অপেক্ষা করে বৈঠক শেষে বেরিয়ে যান মন্ত্রী সহ জেলা প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিরা৷ বাইরে এসে তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করেন মন্ত্রী ও জেলাশাসক। মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিংহ বলেন, “উনি চান না পৌষমেলা (Poush Mela Shantiniketan 2022) হোক৷ তাই এই রকম আচরণ করলেন৷ আমরা প্রায় এক ঘণ্টা অপেক্ষা করেছি। এখনও ওঁর যদি শুভবুদ্ধি হয়, মেলা করতে চান আমরা সহযোগিতা করব।”
জেলাশাসক বিধান রায় বলেন, “এটা যে অবমাননা তা বলার অপেক্ষা রাখে না৷ মন্ত্রী, আমি, জেলা পুলিশের আধিকারিকেরা উপস্থিত থাকতেও উনি নাকি নিরাপত্তার অভাব বোধ করছেন। এমনকি, উনি ফোন ধরার সৌজন্যও বোধ করেননি। এটা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। আমরা অত্যন্ত হতাশ৷ পুরো বিষয়টি নিয়ে ভাবতে হবে৷ তবে মেলা হবে, বিশ্বভারতী না করলে, গত বছরের মত ডাকবাংলো মাঠে মেলা হবে।”

You might also like