Latest News

অর্জুন কাকে ভোট দেবেন? বিজেপিতে জিতে তৃণমূলে ফেরা সাংসদের রাইসিনা রহস্য

দ্য ওয়াল ব্যুরো: এই কয়েক মাস আগেও তাঁর হোয়াটসঅ্যাপ ডিপি ছিল—শ্রীরামচন্দ্র তির ছুড়ছেন। নিকষ অন্ধকার থেকে ঠিকরে বেরোচ্ছে গাঢ় গেরুয়া রঙ! আর এখন সেই রামও নেই আর হাতে সেই তিরও নেই। বদলে যাওয়া হোয়াটসঅ্যাপ ডিপিতে ব্যারাকপুরের সাংসদ অর্জুন সিংয়ের হাত অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাতে। সেই অর্জুন ১৮ জুলাই রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে (President Election) কাকে ভোট দেবেন?

জিতেছিলেন বিজেপির টিকিটে। তারপর পাট-বিদ্রোহ করে ফিরেছেন পুরনো দল তৃণমূলে। রাইসিনা হিলসে পাঠানোর নির্বাচনে তাঁর ভোট কে পাচ্ছেন, যশবন্ত সিনহা নাকি দ্রৌপদী মুর্মু? দ্য ওয়ালের এই প্রশ্নের মুখে অর্জুন যেন রাইসিনা নিয়ে রহস্য রাখতে চাইলেন।

শুক্রবার সন্ধ্যায় অর্জুন বলেন, “এটা গোপন ব্যালটের ভোট। আমি জনসমক্ষে বলতে পারি না কাকে ভোট দেব। এটা বলাটা বেআইনি!” অর্জুন সাংসদ পদ ছাড়েননি। বরং ক্যামাকস্ট্রিটে অভিষেকের অফিসে যে রবিবার বিকেলে অর্জুন তৃণমূলে ফিরেছিলেন সেদিন তিনি বলেছিলেন, ওঁরা আগে সাংসদ পদ ছাড়ুক, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আমিও ছেড়ে দেব।
ওঁরা কারা?

আরও পড়ুন: অধিকারী বাবা-ছেলে কাকে ভোট দেবেন, যশবন্ত না দ্রৌপদী, অকপট শিশির-দিব্যেন্দু

সেদিন অর্জুন কারও নাম করেননি। কিন্তু বুঝতে অসুবিধা হয়নি, ইঙ্গিত কাদের দিকে। কাঁথি এবং তমলুকে তৃণমূলের টিকিটে জেতা দুই সাংসদ শিশির অধিকারী এবং দিব্যেন্দু অধিকারী অনেক দিন হল, কালীঘাটের সঙ্গে দূরত্ব বাড়িয়েছেন। গেরুয়া শিবিরের সঙ্গে তাঁদের সখ্য সর্বজনবিদিত। একুশের ভোটের আগে পূর্ব মেদিনীপুরে অমিত শাহর একটি সভায় পদ্মশিবিরের মঞ্চে সটান হাজির হয়েছিলেন শিশিরবাবু। দিব্যেন্দু সরাসরি গেরুয়া শিবিরের মঞ্চে না গেলেও, কেন্দ্রীয় মন্ত্রীদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখা, প্রধানমন্ত্রী হলদিয়ায় এলে তাঁর অনুষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা করে দেওয়া– এসব করেছেন।
এদিন রাষ্ট্রপতি নির্বাচন (President Election) নিয়ে দ্য ওয়াল সবার আগে শিশিরবাবু ও দিব্যেন্দুর সঙ্গে যোগাযোগ করেছিল। অধিকারী বাড়ির বাবা-ছেলে অকপটে তাঁদের কথাও জানিয়েছিলেন দ্য ওয়ালকে। শিশিরবাবু ভোটের ব্যাপারে খোলাখুলি কিছু না বললেও দিব্যেন্দু বলেছিলেন, তিনি যশবন্ত সিনহাকেই ভোট দেবেন। সেইসঙ্গে এও বলেছিলেন, এটা গোপন ব্যালটের ভোট। অর্থাৎ টুইস্ট স্পষ্ট।

আরও পড়ুন: বিজেপি প্রার্থীকে সমর্থনের ঢল, জনজাতি দ্রৌপদী কি দলিত নারায়ণনকে ছাপিয়ে যেতে পারবেন

অর্জুনকে দিব্যেন্দুর কথা উল্লেখ করে বলা হয়, জোড়াফুলে জিতে কালীঘাটের সঙ্গে দূরত্ব বাড়ানো সাংসদ বলছেন, তাঁর ভোট যশবন্তকে। জবাবে অর্জুন বলেন, “আমি তো দিব্যেন্দু নই। আমি অর্জুন সিং।”

গেরুয়া শিবিরের অনেক নেতাই ঘরোয়া আলোচনায় দাবি করছেন, বাংলার অনেক তৃণমূল বিধায়ক ক্রস ভোট করবেন। অর্থাৎ গোপন ব্যালটে ছাপ দিয়ে দেবেন দ্রৌপদীর পক্ষে। সাড়ে তিন বছর অর্জুন বিজেপিকে কাছ থেকে দেখেছেন। এটা কতটা সম্ভব? নাকি শুধুই সন্দেহ আর অবিশ্বাসের বাতাবরণ তৈরি করার কৌশল? অর্জুন বললেন, “আমার মনে হয় না ক্রস ভোট হবে। ওরা মিথ্যে কথা বলছে। ফালতু!”

You might also like