Latest News

তোলাবাজরা পদ পাচ্ছে দলে, পিকে বাংলার রাজনীতির বোঝেটা কী, বিস্ফোরক তৃণমূল সাংসদ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: প্রশান্ত কিশোরকে নিয়ে ক্ষুব্ধ হওয়ার তালিকা ক্রমশ লম্বা হচ্ছে তৃণমূলে। এবার নতুন সংযোজন বর্ধমান পূর্বের তৃণমূল সাংসদ সুনীল কুমার মণ্ডল।

তাঁর সাফ কথা, “প্রশান্ত কিশোর বাংলার রাজনীতির বোঝেটা কী! যে তাঁর কথায় রাজনীতি করতে হবে?” তিনি আরও বলেন, “ভাড়াটে সৈন্য দিয়ে কখনও যুদ্ধ জয় করা যায় না। ওই স্তাবকেরা কথা বলবে, আদেশ দেবে সেটা মেনে নেব না। ওর থেকে আমাদের লেখাপড়া ও রাজনৈতিক শিক্ষা বেশি। এইভাবে দল চলতে পারে না।” এখানেই থামেননি সুনীলবাবু। দলের বিরুদ্ধে আরও অভিযোগ রয়েছে তাঁর।

সুনীলবাবু বলেন, “যারা তোলাবাজ, দুর্নীতিগ্রস্ত, তারা দলে পদ পাচ্ছে। আর যাঁরা দীর্ঘদিনের সৈনিক তাঁরা ব্রাত্য।” আসানসোলের পুর প্রশাসক তথা পাণ্ডবেশ্বরের বিধায়ক জিতেন্দ্র তিওয়ারির সাম্প্রতিক ক্ষোভ নিয়েও সরব হয়েছেন সুনীলবাবু। তাঁর কথায়, “জিতেন দলের লড়াকু সৈনিক। কেন আজকে ও ক্ষোভের বোমা ফাটাচ্ছে। এটা তো দলের দেখা উচিত। তা না করে দলের নেতারা ওর বিরুদ্ধেই বিবৃতি দিচ্ছে।”

সুনীল মণ্ডলের সঙ্গে শুভেন্দু অধিকারীর ছবি সহ পোস্টার পড়েছিল দুর্গাপুরে। তাতে লেখা ছিল, আপনাকে শুভেন্দুদার সঙ্গে দেখতে চাই। সেই ঘটনা নিয়ে ইঙ্গিতপূর্ণ মন্তব্য করেছিলেন সুনীল মণ্ডল। বলেছিলেন, মানুষ তাঁদের ইচ্ছে মতো পোস্টার লাগাচ্ছে। আমি কী করতে পারি।

এর মধ্যেই খবর, আজ বুধবার বিকেলে শুভেন্দুর সঙ্গে দেখা করতে পারেন সুনীল মণ্ডল। কয়েক দিন আগে সুনীলবাবুর মা প্রয়াত হন। সোমবার তাঁর শ্রাদ্ধ অনুষ্ঠান ছিল। দেখা গিয়েছিল শুভেন্দু না গেলেও দূত মারফত পুষ্পার্ঘ্য পাঠিয়েছিলেন।

সব মিলিয়ে বর্ধমান পূর্বের সাংসদকে নিয়ে জোর জল্পনা তৈরি হয়েছে। যদিও দল ছাড়া বা অন্য কোনও দলে যাওয়ার বিষয়ে তিনি কোনও মন্তব্য করেননি।

তবে পর্যবেক্ষকদের অনেকে বলছেন, লোকসভায় ধাক্কা খাওয়ার পর যে প্রশান্ত কিশোরকে ক্ষত মেরামত করার জন্য নিয়োগ করেছিল তৃণমূল একুশের আগে সেই তিনিই ক্ষোভের কারণ হয়ে উঠছেন। এবং সেই সংক্রমণ ক্রমশ বাড়ছে।

You might also like