Latest News

ফের স্কুল বন্ধ, ভ্যাকসিন নিতে এসে মনখারাপ পড়ুয়াদের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সকাল থেকে স্কুলে স্কুলে ভ্যাকসিন দেওয়া শুরু হয়েছে। করোনার তৃতীয় ঢেউয়ের আশঙ্কার মধ্যে স্বস্তি ১৫-১৮ বছর বয়সি পড়ুয়ার অভিভাবকদের। কিন্তু ফের বন্ধ স্কুল। তাই ভ্যাকসিনের ডোজ নিয়ে ফেরার পথে মনখারাপ পড়ুয়াদের।

সোমবার সকাল থেকে ভ্যাকসিন দেওয়া শুরু হয়েছে কলকাতার ১৬টি স্কুলে। সব পড়ুয়াদের স্কুলের নির্দিষ্ট ইউনিফর্ম পরেই আসতে হচ্ছে। প্রথমে আধার কার্ড দেখে নাম নথিভুক্ত করা হহয়েছে। তারপর একটা ফর্ম পূরণ করতে হচ্ছে পড়ুয়াদের। এরপর দেওয়া হচ্ছে ভ্যাকসিনের ডোজ। পর্বেক্ষনের জন্য আধঘণ্টা পড়ুয়াদের বসিয়ে রাখার পর ছাড়া হচ্ছে। অভিভাবকদের ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না।

বাগবাজার মাল্টিপারপাস গার্লস স্কুলের একাদশ শ্রেণির পড়ুয়া সুকন্যা বলল, ‘স্কুল খুলতে না খুলতেই বন্ধ হয়ে গেল। খারাপ লাগছে।’ একই ক্লাসের নেহার বক্তব্য, ‘আবার স্কুল বন্ধ হয়ে গেল। বন্ধুদের সঙ্গে আর দেখা হবেনা। নতুন বছরের আনন্দটাই আর রইল না। বাবা-মা চিন্তায় ছিল। ভ্যাকসিন হওয়াতে ওঁরা স্বস্তি পাবে।’

ভ্যাকসিন নিয়ে এসে এদিন অনেকেই ভয়ে ভয়ে ছিল। তাঁদের সাহস জুগিয়েছেন শিক্ষিক-শিক্ষিকারা। স্কুলের গেট ও যেখানে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়, সেই চত্বর সাজানো হয়েছিল। লাগানো হয়েছিল বিভিন্ন রঙের বেলুন। বেথুন কলেজিয়েট স্কুলের এক শিক্ষাকর্মী জানালেন পড়ুয়াদের মন থেকে থমথমে ভাবটা কাটাতেই এই সাজ।

কিন্তু তা সত্ত্বেও মনভার দ্বাদশের ছাত্রী স্নেহা রক্ষিতের। তাঁর কথায়, ‘ভাবিনি স্কুল আবার বন্ধ হয়ে যাবে। আমার অনলাইনে পড়াশোনা করতে ভালো লাগেনা।কিন্তু কিছু করার নেই।’

বাগবাজার মাল্টিপারপাস গার্লস স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা রেণুকা বসু বললেন, ‘আগের মতোই অনলাইন পড়াশোনা চলবে। কোনও সমস্যা হবে না। এদিনের ভ্যাকসিনেশন নির্বিগ্নেই হয়েছে। পড়ুয়াদের মধ্যে উৎসাহ দেখা গেছে।

পড়ুন দ্য ওয়ালের সাহিত্য পত্রিকাসুখপাঠ

You might also like