Latest News

করোনায় প্রয়াত বারুইপুর পূর্ব কেন্দ্রের বিদায়ী বিধায়ক নির্মলচন্দ্র মণ্ডল

দ্য ওয়াল ব্যুরো: করোনা প্রাণ কাড়ল আরও এক বিদায়ী তৃণমূল বিধায়কের। বারুইপুর পূর্ব কেন্দ্রের তিনবারের বিধায়ক নির্মলচন্দ্র মন্ডলের মৃত্যু হল করোনা সংক্রমণে। বৃহস্পতিবার রাতে এম আর বাঙুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে। আজ, শুক্রবার দুপুরেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন তিনি। জনদরদী নেতার মৃত্যুতে শোকের ছায়া রাজনৈতিক মহলে।

জানা গিয়েছে, বেশ কয়েকদিন ধরে করোনা সংক্রমণের উপসর্গ ধরা পড়ছিল তাঁর। জ্বর হয়েছিল। কোভিড টেস্ট করানোর পরে রিপোর্ট পজিটিভ আসে। এরপরে তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে। সূত্রের খবর, বেডের অভাবে কলকাতার হাসপাতালগুলিতে ভর্তি করানো যায়নি তাঁকে। তাই বারুইপুরেরই একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন নির্মলবাবু। গতকাল রাতে সঙ্কটজনক অবস্থায় তাঁকে এম আর বাঙুর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই আজ মৃত্যু হয়েছে তাঁর।

প্রাক্তন বিধায়কের পরিবারের অভিযোগ, সকলের বিপদে ছুটে যাওয়া মানুষটা কার্যত বিনা চিকিৎসায় মারা গেলেন। কোভিড বেড না মেলায় কলকাতার কোনও হাসপাতালেই নাকি ভর্তি করা যায়নি তাঁকে। শেষ মুহূর্তে এম আর বাঙুরে ভর্তি করলেও চিকিৎসা পুরোপুরি শুরুর আগেই মৃত্যু হয় নির্মলবাবুর।

দক্ষিণ ২৪ পরগনার সোনারপুরের প্রতাপনগরের বাসিন্দা নির্মলবাবু এলাকায় বেশ জনপ্রিয়। পৈতৃক জমি রয়েছে তাঁর। চাষবাসের পাশাপাশি শিক্ষকতাও করেছেন প্রায় পাঁচ বছর। ছাত্রজীবন থেকেই নানা সমাজসেবামূলক কাজের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। এলাকাবাসীরাই বলেন, খুবই সাধারণভাবে জীবন কাটাতেন নির্মলবাবু। বিলাসব্যসন থেকে তিনি শত হাত দূরেই থাকতেন। পাড়ার সকলের সমস্যায় পাশে দাঁড়াতেন। বিরোধী দলের রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বরাও নির্মলবাবুর এমন সহজ-সাধারণ জীবনযাপনের প্রশংসা করে থাকেন। ২০১৬ সালে তৃণমূলের টিকিটে জিতেছিলেন। এবছর বয়সজনিত কারণে তাঁকে টিকিট দেননি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

দু’দিন আগে নদিয়ায় তৃণমূলের প্রাক্তন জেলা সভাপতি তথা তেহট্টের বিদায়ী বিধায়ক গৌরীশঙ্কর দত্তও কোভিডে প্রাণ হারালেন। তার আগে মুরারই-এর বিদায়ী তৃণমূল বিধায়ক আব্দুর রহমানেরও প্রাণ কাড়ে করোনা। রাজ্যে পঞ্চম দফার ভোট চলাকালীন দক্ষিণ কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে মৃত্যু হয় তাঁর।

You might also like