Latest News

ডোমজুড়ের রুদ্রপুরে কোয়ারেন্টাইন সেন্টার গড়তে বাধা, ত্রিপল খাটিয়ে দিন কাটছে পরিযায়ী শ্রমিকদের

কয়েক জন গ্রামবাসী এই শ্রমিকদের কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে পাঠানোর দাবি জানিয়ে পথ অবরোধ করেন। অন্যদিকে গ্রামের স্কুলে এঁদের রাখা যাবে না বলে দাবি করে বিক্ষোভ দেখান গ্রামবাসীদের একাংশ।

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কালবৈশাখী এখন নিত্যসঙ্গী। সরকারি কোনও কোয়ারেন্টাইন সেন্টার না মেলায় এই দুর্যোগের মধ্যে হাওড়ার ডোমজুড়ের রুদ্রপুর গ্রামে কার্যত বনের মধ্যে ত্রিপল খাটিয়ে বাস করতে হচ্ছে মুম্বাই ও দিল্লি থেকে ফেরা দশ জন শ্রমিককে।

বিভিন্ন স্কুল ও অন্য সরকারি ভবনে কোয়ারেন্টাইন সেন্টার খুলছে প্রশাসন। অন্য রাজ্য থেকে আসা শ্রমিকরা সেখানে চোদ্দো দিন থাকার পরে বাড়ি ফিরছেন। এর মধ্যে কারও করোনা সংক্রমণের লক্ষণ দেখা দিলে তাঁর চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। কিন্তু অনেক সময়ই দেখা যাচ্ছে কোয়ারেন্টাইন সেন্টার করতে গেলে বাধার মুখে পড়তে হচ্ছে প্রশাসনকে। রুদ্রপুরেও কোয়ারেন্টাইন সেন্টার খুলতে গেলে গ্রামবাসীদের একাংশের বিক্ষোভের মুখে পড়েন ডোমজুড়ের বিডিও। প্রবল বিক্ষোভে তিনি এলাকা ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হন।

প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে স্থানীয় রুদ্রপুর স্কুলে কোয়ারেন্টাইন সেন্টার খোলার কথা থাকলেও এখনও পর্যন্ত এজন্য কোনও ঘর পায়নি প্রশাসন। গ্রামবাসীদের বাধার ফলেই তা সম্ভব হয়নি। তাই ঝড় বৃষ্টির মধ্যেই বাধ্য হয়ে কষ্টে দিন কাটাচ্ছেন শ্রমিকরা। তা জানতে পেরে বিডিও রাজা ভৌমিক আসেন এলাকায়। তখন বেশ কয়েক জন গ্রামবাসী এই শ্রমিকদের কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে পাঠানোর দাবি জানিয়ে পথ অবরোধ করেন। অন্যদিকে গ্রামের স্কুলে এঁদের রাখা যাবে না বলে দাবি করে বিক্ষোভ দেখান গ্রামবাসীদের একাংশ। তবে এব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে কোনও মন্তব্য করতে রাজি হননি বিডিও।

দশ জন শ্রমিককে নিয়ে গ্রামবাসীরা দুই মেরুতে অবস্থান করছেন। প্রশাসন এখন কোয়ারেন্টাইন সেন্টারের জন্য ঘর কী ভাবে পাওয়া যায় তা নিয়ে চিন্তিত। এরই মধ্যে দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন ভিন রাজ্য থেকে ফেরা শ্রমিকরা।

You might also like