Latest News

সিঙ্গুরের ফিতে কাটলেন সুজন, বাম যুবদের প্রতীকী শিলান্যাস কর্মসূচিতে বড় জমায়েত

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সিঙ্গুর থেকে টাটা পাত্তারি গোটানোর পর দেওয়াল লিখন মনে পড়ে?

পাড়ায় পাড়ায়, অলিতে গলিতে তৃণমূল দেওয়াল লিখেছিল-
সিঙ্গুর থেকে টাটা গেল
বাংলা হল শুদ্ধ,
আর কটা দিন সবুর করো,
এবার যাবে বুদ্ধ!

সেই সিঙ্গুরে কোণঠাসা হয়ে পড়েছিল বামেরা। কিন্তু একুশের ভোটের আগে যখন সিঙ্গুরের মাটিতে তৃণমূলের খানিকটা নড়বড়ে অবস্থান তখন কারখানা সংলগ্ন অঞ্চলে বড় জমায়েত করল বাম যুবরা।

এদিন নবান্ন অভিযানকে সামনে রেখে সিঙ্গুরে কারখানার জমিতে প্রতীকী শিলান্যাস কর্মসূচি ডেকেছিল সিপিএমের যুব সংগঠন ডিওয়াইএফআই। কারখানার জমিতেই প্রতীকী শিলান্যাস করেন বাম পরিষদীয় নেতা সুজন চক্রবর্তী।

এদিন সুজনবাবু বলেন, বাম-গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠিত হলেই এই জমিতে ফের শিল্পায়ন হবে। তারই শপথ আজ নেওয়া হল। তাঁর কথায়, আজ সিঙ্গুরের মানুষ হাড়ে হাড়ে বুঝতে পারছেন সেদিন কী সর্বনাশটা হয়েছিল।

সেদিন সিঙ্গুরের যাঁরা অনিচ্ছুক কৃষক ছিলেন তাঁদের অনেকেই এখন আঙুল কামড়ান। জমি ফেরত পাওয়া গেলেও তা আর চাষের উপযুক্ত নেই। মাটির এত গভীরে কংক্রিট রয়ে গেছে যে ১০০ বছরে সেই জমি চাষযোগ্য হবে কিনা সন্দেহ।

সিঙ্গুরে লোকসভা ভোটে বড় ধাক্কা খেয়েছে তৃণমূল। সিঙ্গুর বিধানসভায় প্রায় অনেক ভোটের লিড রয়েছে লকেট চট্টোপাধ্যায়ের। সিঙ্গুরে যে বিজেপি মাথাচাড়া দিয়েছে তা বাস্তব। সম্প্রতি মুকুল রায় সিঙ্গুরে গিয়ে বলে এসেছেন, সেদিন পাপ করেছিলাম। আজ প্রায়শ্চিত্ত করতে বিজেপিতে এসেছি। তিনি আরও বলেছেন, বিজেপির সরকার হলেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে বলব সিঙ্গুরে যেন টাটাকে ফিরিয়ে আনা হয়।

হুগলি জেলার ডিওয়াইএফআই নেতা মিঠুন চক্রবর্তী বলেন, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গোটা রাজ্যের বেকারদের স্বপ্নের ইমারতকে ডিনামাইট দিয়ে উড়িয়ে দিয়ে সরষে বীজ ছড়িয়েছিলেন। মানুষই ওঁকে জবাব দেবে।” যদিও মিঠুন এও বলেছেন, বিজেপি এখন ঘোলা জলে মাছ ধরতে নেমেছে। কারণ সেদিন মমতার অনশনে এই লকেট চট্টোপাধ্যায়ই গিয়ে বসেছিলেন। রাজনাথ সিং এসে দিদিমণির মুখে সরবতের গ্লাস ধরেছিলেন।

তবে এদিনের বামেদের কর্মসূচিতে অন্য একটি দিক লক্ষ্য করা গেছে সিঙ্গুরে। ২০০৮ সালের বামফ্রন্টের একটি মিছিলে গ্রামের সাধারণ মহিলারা ঝাঁটা, লাঠি নিয়ে তেড়ে এসেছিলেন। তখন বেঁচেছিলেন প্রবীণ স্বাধীনতা সংগ্রামী তথা তৎকালীন সিপিএমের হুগলি জেলা সম্পাদক বিনোদ দাশ। এদিন ভিন্ন ছবি উঠে আসে। দেখা যায় বাম যুবদের মিছিলকে উলুধ্বনি, শঙ্খধ্বনিতে স্বাগত জানাচ্ছেন মহিলারা।

You might also like