Latest News

জমি দিয়েও মেলেনি ক্ষতিপূরণ, ১১ বছর পর টাকা দেওয়ার নির্দেশ হাইকোর্টের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: রাস্তা সম্প্রসারণের জন্য জমি দিয়েও মেলেনি কোনও ক্ষরিপূরণ। অনেক আবেদনেও কোনও কাজ না হওয়ায় অবশেষে কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন জমির মালিক। অবশেষে ১১ বছর পরে ওই ব্যক্তিকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার জন্য রাজ্য সরকারকে নির্দেশ দিল হাইকোর্ট।

মুর্শিদাবাদ জেলার ডোমকলে রাজ্য সড়ক সম্প্রসারণের জন্য ১৮৯৪ সালের জমি অধিগ্রহণ আইন অনুযায়ী ২০০৯ সালে ডোমকলের বাসিন্দা ত্রিভঙ্গ মুরারি পালের কাছ থেকে ৪৫ শতক জমি কিনেছিল রাজ্য সরকার। সেই জমির উপরে রাস্তা তৈরি হয়েছে। কিন্তু জমি অধিগ্রহণের পরেও কোনও ক্ষতিপূরণ পাননি ত্রিভঙ্গ।

জানা গিয়েছে, ক্ষতিপূরণ পাওয়ার জন্য মুর্শিদাবাদের জেলাশাসকের কাছেও আবেদন জানান ত্রিভঙ্গ। কিন্তু তাতেও কোনও সুরাহা হয়নি। প্রশাসনের তরফে কোনও জবাব না পেয়ে অবশেষে কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন তিনি।

মামলাকারীর আইনজীবী অরিন্দম দাস এদিন আদালতের সামনে জানান, ক্ষতিপূরণ দেওয়ার বিষয়ে গড়িমসি করেছে রাজ্য সরকার। তারা কোনও তথ্যও জানাচ্ছে না। তথ্যের আইনে সরকারের কাছে আবেদন করলে সরকার নাকি জানায় এই বিষয়ে কোনও তথ্য তাদের কাছে নেই, সব হারিয়ে গিয়েছে।

অরিন্দম দাস আরও বলেন, আইন অনুসারে যদি কারও জমি অধিগ্রহণের পরে ক্ষতিপূরণ না দেওয়া হয় তাহলে ২০১৩ সালের নতুন জমি অধিগ্রহণ আইন অনুযায়ী গ্রামাঞ্চলে জমির দামের চার গুণ ও শহরাঞ্চলে দ্বিগুণ ক্ষতিপূরণ দিতে বাধ্য রাজ্য সরকার।

এদিন সওয়াল-জবাবের পরে বিচারপতি আশিস কুমার চক্রবর্তী নির্দেশ দেন, ২০১৩ সালের নতুন জমি অধিগ্রহণ আইন অনুযায়ীই ক্ষতিপূরণ দিতে হবে ত্রিভঙ্গ বাবুকে। আগামী চার সপ্তাহ বা এক মাসের মধ্যে রাজ্য সরকারকে সব টাকা মিটিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।

You might also like