Latest News

বাসন্তীতে তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দল, গুরুতর আহত ২ যুব তৃণমূল কর্মী-সমর্থক

দ্য ওয়াল ব্যুরো, ক্ষি ২৪ পরগনা: ফের গোষ্ঠী কোন্দলের জেরে উত্তপ্ত হয়ে উঠল বাসন্তী ব্লক। শাসকদলের গোষ্ঠী কোন্দলে বুধবার রাতে গুরুতর আহত হন যুব তৃণমূল কংগ্রেসের দুই সদস্য ইজাজ আহমেদ লস্কর ও রশিদ আলি গায়েন। আহত অবস্থায় ওই দুই জনকে ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। দু’জনেরই অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বুধবার রাতে দুই যুব তৃণমূল কর্মী ইজাজ আহমেদ লস্কর ও রশিদ আলি গায়েন বাইক চালিয়ে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার ক্যানিং থেকে জেলারই বাসন্তীর শিমুলতলায় নিজেদের বাড়িতে ফিরছিলেন। অভিযোগ, সেই সময় রাতের অন্ধকারে বাসন্তী থানার কাঁঠালবেড়িয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের শিমুলতলা এলাকায় একটি মোড়ে জনা পনেরো দুষ্কৃতী তাঁদের পথ আটকে দাঁড়ায়। বাইক থামানো সঙ্গে সঙ্গেই কোনও কথা বলার সুযোগ না দিয়ে ওই যুই যুবকর্মীর উপর ধারালো অস্ত্র নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে তারা। এলোপাথাড়ি ভাবে তারা অস্ত্র চালাতে থাকে। তারা গুলিও চালায় বলে অভিযোগ।

রক্তাক্ত অবস্থায় রাস্তার উপর পড়ে আর্তনাদ করতে থাকেন ওই দুই যুবক। তখন লোকজন ছুটে আসতে শুরু করলে দুষ্কৃতীরা গা ঢাকা দেয়। পরে স্থানীয় যুব তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মীরা আহতদের উদ্ধার করে ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে তাঁদের চিকিৎসা চলছে।

এ বিষয়ে স্থানীয় বাসন্তী ব্লক যুব তৃণমূল সংগঠনের নেতা আমান লস্কর বলেন, “এলাকা ও পঞ্চায়েত দখল করার জন্য সিপিএম ও আরএসপির দুষ্কৃতীরা এমন হামলা চালিয়েছে। তারা অবশ্য এখন তৃণমূল কংগ্রেস আশ্রিত। এলাকায় যুব তৃণমূল কংগ্রেস করার জন্য এবং আমাদের উৎখাত করার জন্য এমন ঘটনা বার বার ঘটছে।”

এই এলাকায় রাজনৈতিক সংঘর্ষ লেগেই থাকে। বিশেষ করে মূল তৃণমূল বনাম তৃণমূল যুব সংগঠনের মধ্যে। এ মাসের গোড়ায় রণক্ষেত্রের চেহারা নিয়েছিল বাসন্তীর চড়াবিদ্যা মিশন বাজার এলাকা। দুই গোষ্ঠীর গণ্ডগোলে গুলিও চলেছিল। তাতে দুই তৃণমূল কর্মী আহত হয়েছিলেন। এমনিতে ক্যানিং, বাসন্তী, গোসাবার মতো দক্ষিণ ২৪ পরগনার এই সমস্ত এলাকাগুলিতে তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দল সবার জানা। এ নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একাধিকবার সতর্ক করেছেন।  কিন্তু তাতে লাভ যে কিছুই হয়নি তা একের পর এক সংঘর্ষের ঘটনাতেই প্রমাণ হয়ে গেছে।

You might also like