Latest News

মোবাইল, কম্পিউটারে কেন্দ্রের নজরদারি: গর্জে উঠলেন মমতা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া দিতে কখনই দেরি করেন না দিদি। এ বারও তার অন্যথা হলো না। মোবাইল থেকে কম্পিউটারে দশ কেন্দ্রীয় এজেন্সিকে নজরদারি চালানোর কেন্দ্রের ছাড়পত্রের খবর প্রকাশ্যে আসতেই টুইট করে গর্জে উঠলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের জারি করা ওই নির্দেশিকা টুইট করে মমতা লেখেন, “এটা বিপজ্জনক নয়?”

গতকালই নির্দেশিকা জারি করেছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। ওই নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, আগে শুধুমাত্র যেসব তথ্য এক কম্পিউটার থেকে অন্য কম্পিউটারে বা এক ফোন থেকে অন্য ফোনে আদান-প্রদান হতো, তার উপরেই নজরদারি চালাতে পারত কেন্দ্র। কিন্তু এই নির্দেশের পর শুধুমাত্র ই-মেল নয়, কারও কম্পিউটার বা ফোনের মধ্যে থাকা তথ্য, ছবি সবকিছুর উপরেই নজরদারি চালাতে পারবে এই দশ সংস্থা।


এই নির্দেশিকায় আরও জানানো হয়েছে, কারও ব্যক্তিগত তথ্যের উপর সন্দেহ হলেই এই সংস্থাগুলি চাইলে তাদের ফোন বা কম্পিউটার বাজেয়াপ্ত করতে পারে। জিজ্ঞাসাবাদও করা হতে পারে সংশ্লিষ্ট মোবাইল বা কম্পিউটারের মালিককে। যদি তিনি তদন্তকারী সংস্থার সঙ্গে সহযোগিতা না করেন, তাহলে সাত বছর অবধি জেল পর্যন্ত হতে পারে।

কেন্দ্রের নির্দেশিকা

মোবাইলে আধার লিঙ্কের কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধেও জেহাদ ঘোষণা করেছিলেন মমতা। নবান্নে দাঁড়িয়ে বলেছিলেন, কখনওই তিনি মোবাইলের সঙ্গে আধার লিঙ্ক করবেন না। তাতে যদি তাঁকে মোবাইল ব্যবহার করা ছেড়ে দিতে হয়, বা তাঁকে গ্রেফতার করা হয়, তাতেও তাঁর কিছু যায় আসে না। এরপর গত সেপ্টেম্বরে যখন সুপ্রিম কোর্টের তৎকালীন প্রধান বিচারপতি দীপক কুমার মিশ্রের ডিভিশন বেঞ্চ আধার মাওলার রায় দেয়, তখন ইতালির মিলানে ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। শীর্ষ আদালত রায় দিয়েছিল, ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের ক্ষেত্রে আধার বাধ্যতামূলক নয়। শুধু ব্যাঙ্ক নয়, মোবাইল কানেকশন, নতুন সিম নেওয়া, স্কুল-কলেজে ভর্তি, ইউজিসি-নিট প্রভৃতি পরীক্ষার ক্ষেত্রেও জরুরি নয় আধার কার্ড। কোনও বেসরকারি সংস্থা কারও কাছে আধার সংক্রান্ত কোনও তথ্য জিজ্ঞাসা করতে পারবে না। সেই রায়ে রাজনৈতিক জয়ই দেখেছিলেন মমতা। বলেছিলেন, “এটা আমাদের জয় নয়, এটা মা-মাটি-মানুষের জয়। কারণ আধার কার্ডের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করা হচ্ছিল। তাই আমরা লড়াই করেছিলাম যাতে মানুষের স্বাধীনতা ফিরে আসে। আজ সুপ্রিম কোর্টের রায়ে সেই স্বাধীনতা ফিরে এসেছে।

এ বার মোবাইল, কম্পিউটারে নজরদারি চালানোর কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধেও ব্যাপক ক্ষোভ উগরে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী।

You might also like