Latest News

ডেঙ্গিতে আর মৃত্যু নয়! জেলাশাসকদের গাপ্পি মাছ ছাড়তে জোর দিতে বললেন মুখ্যসচিব

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কলকাতা শহরে ডেঙ্গিতে (Dengue) আক্রান্ত হয়ে বৃহস্পতিবার মৃত্যু হয়েছে এক স্কুলছাত্রের। হাসপাতালের ডেথ সার্টিফিকেটে মৃত্যুর কারণ হিসেবে ডেঙ্গির কথাই লেখা হয়েছে। বর্ষা আসতেই ডেঙ্গির প্রকোপ বাড়ে বাংলায়। গত বছরও করোনার মধ্যে ডেঙ্গি-ম্যালেরিয়া ঠেকাতে তৎপর হয়েছিল নবান্ন। এ বছর অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্র মারা যাওয়ায় উদ্বেগ আরও বেড়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ার আগেই নবান্নের তরফে ডেঙ্গি প্রতিরোধ করতে একগুচ্ছ নির্দেশ মানার কথা বলা হয়েছে।

ডেঙ্গি (Dengue) পরিস্থিতি নিয়ে আজ, শুক্রবার সমস্ত জেলার জেলাশাসক, জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিক ও মেডিক্যাল অফিসারদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন রাজ্যের মুখ্যসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদী। ডেঙ্গিতে যাতে রাজ্যে আর একটিও মৃত্যুর ঘটনা না ঘটে সে জন্য সব রকম পদক্ষেপ করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে জেলাশাসকদের। মুখ্যসচিব বলেছেন, ডেঙ্গিতে যাতে আর মৃত্যু না হয় তার জন্য অবিলম্বে ব্যবস্থা নিতে হবে। টেস্ট বাড়াতে হবে, ডেঙ্গি নিয়ে সচেতনতার প্রচার জোরদার করতে হবে, পাশাপাশি গাপ্পি মাছের চাষ বাড়ানোর দিকেও জোর দিয়েছেন মুখ্যসচিব।

জেলাশাসকদের কী কী নির্দেশ দেওয়া হয়েছে?
ডেঙ্গির উপসর্গ দেখলেই পরীক্ষা করতে হবে।
ডেঙ্গির টেস্ট বাড়াতে হবে রাজ্যে।
পুকুর, নালা, খাল, ড্রেন পরিষ্কার রাখতে হবে।
নির্মাণ কাজ চলছে এমন এলাকাগুলিতে যাতে জল না জমে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।
গাপ্পি মাছের চাষ বাড়াতে হবে।

কলকাতার কিশোরের মৃত্যু ডেঙ্গি হেমারেজিক ফিভারে, কতটা মারাত্মক এই রোগ, চিনবেন কী করে?

প্রসঙ্গত, ডেঙ্গি (Dengue) এবং ম্যালেরিয়া রুখতে রাজ্যের জেলায় জেলায় পুকুর-খাল-বিলে গাপ্পি, গাম্বুসিয়া এবং তেলাপিয়া জাতীয় মাছ চাষের কথা আগেই বলেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ওই সব মাছ মশার লার্ভা খেয়ে নেয়। তাই ডিম থেকে পূর্ণাঙ্গ মশার জন্ম হতে পারে না। ডেঙ্গির বাহক এডিস ইজিপ্টাই মশার লার্ভা খেয়ে পেলে গাপ্পি মাছ। এই মাছের চাষ করলে পুকুর, খাল-বিলে মশার লার্ভা জন্মাতে পারে না। মশা নির্মূল করতে মাছ ছাড়ার এই প্রক্রিয়ায় মৎস্য দফতর এবং জেলা প্রশাসনকে একসঙ্গে কাজ করতে বলেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। যে সব জলাভূমিতে মশার বংশবৃদ্ধি হচ্ছে, সেগুলিকে চিহ্নিত করে সেখানে ওই মাছ ছাড়ার পরিকল্পনা নেওয়ার কথা বলা হয়েছিল। মুখ্যসচিব এদিনের বৈঠকে বলেছেন, জেলায় মশার বংশবৃদ্ধি কোথায় হয়, তার হদিস দিতে পারবে জেলা স্বাস্থ্য দফতর। সেই তালিকা পেলেই সেইসব জলাভূমিগুলিকে চিহ্নিত করে সেখানে গাপ্পি মাছের চাষ করা হবে।

ডেঙ্গিতে কালিঘাটের বাসিন্দা ১২ বছরের বিশাখ মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যু হয়েছে বৃহস্পতিবার। হাসপাতাল সূত্রে বলা হয়েছে, ডেঙ্গি হেমারেজিক শক সিন্ড্রোমে মৃত্যু হয়েছে কিশোরের। হেমারেজিক ফিভারে খুব দ্রুত কমে যায় প্লেটলেট, নাক-মুখ দিয়ে রক্তও বেরোতে পারে। দ্রুত লক্ষণ চিনে চিকিৎসা শুরু না হলে প্রাণহানির আশঙ্কা থেকে যায়।

রাজ্য়ের চিকিৎসক ও জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ডেঙ্গি (Dengue) শক সিন্ড্রোম হলে শরীরে জলের পরিমাণ কমে যায়। পালস রেট বাড়ে, রক্তচাপও কমে যায়। ডেঙ্গির প্রাথমিক লক্ষণ হল প্রচণ্ড জ্বর, মাথাব্যাথা, খাদ্যনালীতে সংক্রমণ। লক্ষণ চিনে দ্রুত ডাক্তার দেখিয়ে নেওয়া জরুরি।

ডেঙ্গির তিন প্রধান উপসর্গ– রোগীর জ্বর, কম প্লেটলেট ও গায়ে র‍্যাশ। তখন আর দেরি করা চলবে না, পরীক্ষা করে ট্রিটমেন্ট শুরু করতে হবে। সাধারণ ভাইরাল ফিভারের মতোই ডেঙ্গি জ্বরে গা হাত পা ব্যথা করে, মাথার যন্ত্রণা হয়। ডেঙ্গি জ্বরের আর এক উপসর্গ পেটে ব্যথা আর বমি বমি ভাব বা বমি। আক্রান্ত হওয়ার ২-৫ দিনের মধ্যে ত্বকে লাল লাল র‍্যাশ হয়, ব্লাড প্রেশার কমে যায়। সঙ্গে ডায়রিয়া আর ধুম জ্বর হলে দেরি না করে দ্রুত ডাক্তারের কাছে নিয়ে যেতে হবে।

You might also like