Latest News

আলিপুরদুয়ারে গলা কেটে খুন রেলের গেটম্যান! নৃশংস কাণ্ডে আটক তিন

দ্য ওয়াল ব্যুরো: রেলগেটের রক্ষীকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে খুন আলিপুরদুয়ারে!

পুলিশ জানিয়েছে, বুধবার মধ্যরাতে এই ঘটনা ঘটে আলিপুরদুয়ার শহর লাগোয়া, আলিপুরদুয়ার জংশন ও শামুকতলার মাঝে ডাবরি ১১১ নম্বর রেল গেটে। সে সময়ে রেলগেটে কর্তব্যরত অবস্থায় ছিলেন তাপস মল্লিক নামের এক রক্ষী। তাঁর বাড়ি আলিপুরদুয়ার জংশনের যমঠেক এলাকায়। বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টা নাগাদ ডিউটিতে যোগ দিতে যান তিনি। গভীর রাতে রেলগেটের ভেতরে ঢুকে তাঁকে মেরে ফেলে দুষ্কৃতীরা। ঘটনায় হইচই পড়ে গিয়েছে গোটা এলাকায়।

তাপসের স্ত্রী শম্পা মল্লিক জানিয়েছেন, রাত বারোটা নাগাদ স্বামীর সঙ্গে তাঁর কথা হয়েছিল, রেলগেট খোলা নিয়ে কিছু ঝামেলা হয়েছিল বলেছিলেন তিনি। কিন্তু তার পরে আবার বলেন ঝামেলা মিটে গেছে। কিন্তু তার পরে যে এমন কাণ্ড ঘটে যাবে, তা দুঃস্বপ্নেও ভাবতে পারেননি কেউ।

রেল সূত্রের খবর, ঝামেলার সময়ে স্টেশনেও ফোন করেছিলেন তাপস। ঘটনাস্থলে লোক পাঠানোর কথা বলা হয় স্টেশনের তরফে। কিন্তু পরে তাপস তাঁদেরও জানান, ঝামেলা মিটে গেছে। ফলে সেই রেলগেটে কেউ আর যাননি।

পরে, গভীর রাতে ওই গেট থেকে প্রায় দু’শো মিটার দূরে রেল লাইনের মধ্যে তাপসের দেহটি পড়ে থাকতে দেখেন রেলের টহলদারি কর্মীরা। তাঁরাই স্টেশনে খবর দেন। এর পরে রেল পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে যায়।

আলিপুরদুয়ার জংশন জিআরপি থানার আইসি গোপাল চক্রবর্তী জানান, তদন্ত শুরু করেছে জিআরপি। কীভাবে এই ঘটনা ঘটল, কেনই বা ঘটল, সব দিক থেকে খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তিন জন সন্দেহভাজনকে আটক করা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

অভিযোগ, খুনের পরে টেনেহিঁচড়ে দেহটি সেখান থেকে সরানোর চেষ্টা করা হয়েছিল। তদন্তকারীদের প্রাথমিক অনুমান, দুষ্কৃতীদের কথা মতো বন্ধ গেট না খোলাতেই খুন হতে হয়েছে ওই কর্মীকে।

মৃতের দাদা অনিমেষ মল্লিক বলেন, এই ঘটনার তদন্ত করে দেখা হোক। দোষীদের কঠোর শাস্তি দাবি জানান তিনি।

You might also like