Latest News

করোনা পরীক্ষা করাতে এসে ক্যানিং হাসপাতালের লাইনেই মৃত্যু প্রৌঢ়ের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: দক্ষিণ ২৪ পরগনা: গায়ে জ্বর বেশ কয়েকদিন ধরে। আস্তে আস্তে ঝিমিয়ে পড়ছিল শরীর। সেই অবস্থায় গোসাবা ব্লকের আমতলি গ্রাম থেকে ক্যানিংয়ে এসেছিলেন করোনা পরীক্ষা করাতে। পরীক্ষা দেওয়ার জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থাতেই মারা গেলেন এক ব্যক্তি। মৃতের নাম মনোজ মণ্ডল (৫৯)।

পরিবার ও স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে খবর, বেশ কয়েকদিন ধরে প্রচণ্ড জ্বরে ভুগছিলেন ঐ ব্যক্তি। রবিবার সুন্দরবনের গোসাবা ব্লকের আমতলি গ্রাম থেকে চলে আসেন ক্যানিংয়ের পিয়ালিতে। সোমবার সকালে করোনা পরীক্ষা করানোর জন্য ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে লাইনে অপেক্ষা করছিলেন। অপেক্ষারত অবস্থাতে সেখানেই মৃত্যু হয় ওই ব্যক্তির।

গতকয়েকদিন ধরে দক্ষিণ ২৪ পরগনার বিভিন্ন এলাকাতে আকাল দেখা দিয়েছে করোনা ভ্যাকসিনের। দীর্ঘক্ষণ লাইন দেওয়ার পরও কয়েকজন ভাগ্যবান পাচ্ছেন সেই ভ্যাকসিন। প্রতিটি হাসপাতালে দীর্ঘক্ষণ লাইন দেওয়ার পরও বহু মানুষ ভ্যাকসিন না পেয়ে ফিরে যাচ্ছেন সেই অভিযোগও ভুরিভুরি। এবার ভ্যাকসিনের সঙ্গে সঙ্গে সমস্যা দেখা দিয়েছে করোনা পরীক্ষার ক্ষেত্রেও। বিভিন্ন ব্লক হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রে  টেস্ট করা হলেও তার নির্দিষ্ট সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছে। প্রতিটি হাসপাতাল থেকে গড়ে ৩০ থেকে ৪০ এর বেশি টেস্ট করা সম্ভব হচ্ছে না । কারণ যথেষ্ট কিটের অভাব। এ বিষয়ে ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালের অতিরিক্ত স্বাস্থ্য অধিকর্তা পরিমল ডাকুয়া বলেন, “মহকুমা হাসপাতাল থেকে ৪০ টা নমুনা পরীক্ষা করা সম্ভব প্রত্যেকদিন। সেটাই করা হচ্ছে।”

স্বাস্থ্য দফতরের খবর, প্রতিটি মহকুমা হাসপাতাল থেকে ৪০ টা করে নমুনা পরীক্ষা করা হবে। প্রতিটি ব্লক হাসপাতাল থেকে ৩০টা করে নমুনা পাঠানোর কথা বলা হয়েছে। তবে প্রতিদিন বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। বহু মানুষ আবার পরীক্ষা করাতে এসে দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে ফিরে যাচ্ছেন। জ্বর নিয়ে লাইনে দাঁড়িয়ে থাকার পর বাড়িতে গিয়ে আরও অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। মঠেরদীঘি হাসপাতালে বিএমওএইচ হরিপদ মাজি বলেন, “৩০ জনকে টেস্ট করা হলেও দেখা যাচ্ছে সাত থেকে আট জন পজিটিভ রোগী পাওয়া যাচ্ছে। শুধু তাই নয় প্রতিটি সেভ হোমে ভিড় উপচে পড়ছে।”

প্রতিটি এলাকায় টেস্টে অনেক বেশি জোর দেওয়া হবে এবং আরও বেশি সংখ্যক মানুষ যাতে টেস্ট করাতে পারেন সে দিকেও নজর দেওয়ার হবে বলে জানিয়েছেন জেলাশাসক অন্তরা আচার্য।

You might also like