Latest News

দুর্গাপুজো বিশ্বসেরা, ওদের মুখে চুনকালি: বিজেপিকে নিশানা মমতার

দ্য ওয়াল ব্যুরো: গতকাল কলকাতার দুর্গাপুজোকে আবহমান ঐতিহ্যের তালিকায় জায়গা দিয়েছে ইউনেস্কো। তারপর এই আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি নিয়ে হইহই করে ময়দানে নেমেছিল বিজেপি। অনেকের মতে, সব মানুষের উৎসবকে হিন্দুত্বের আঙ্গিকে তুলে ধরার চেষ্টা করছিল গেরুয়া শিবির। বৃহস্পতিবার তা নিয়েই বিজেপির বিরুদ্ধে তীব্র আক্রমণ শানালেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এদিন বাঘাযতীনের সভা থেকে দিদি বলেন, “এতদিন বিশ্ববাংলার স্বপ্নের কথা বলতাম। কাল তা হয়ে গিয়েছে। বাংলার দুর্গাপুজো ইউনেস্কোর হেরিটেজ সম্মান পেয়েছে। আর কেউ কেউ বাংলায় এসে বলত, মমতাজি বাঙ্গাল মে দুর্গা পূজা নেহি করনে দেতা হ্যায়। আজকে ওদের মুখে চুনকালি পড়ে গেছে।”

মমতা আরও বলেন, এই কথা যখন বলছি আমার গায়ে কাঁটা দিচ্ছে। নিশ্চয়ই আপনাদেরও দিচ্ছে। আমি ক্লাবগুলোকে এমনি এমনি ৫০ হাজার টাকা করে দিই না। কত মানুষ কাজ করেন। কত বর্ণময়, সংস্কৃতিময়। আমি ২০১৬ থেকে এর জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছিলাম। কার্নিভালটা মাথা থেকে বের করেছি!

ইউনেস্কোর টুইটের পরেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এই সাফল্যকে দেশের গর্ব হিসেবে দেখাতে চেয়েছেন। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ টুইট করে লিখেছেন, এ আসলে জাতীয় ঐক্যের পরম্পরার স্বীকৃতি। বাংলার বিরোধী দলনেতা তথা নন্দীগ্রামের বিধায়ক শুভেন্দু অধিকারী প্রধানমন্ত্রীর টুইট রিটুইট করে লিখেছেন, ‘সকল বাঙালি ও সকল ভারতীয়র কাছে গর্বের দিন। আমাদের দুর্গাপুজো আজ বিশ্ববন্দিত।’

অনেকের মতে, এইসব টুইটে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বা বিজেপি নেতারা সরাসরি নিজেদের কলার না তুললেও হাবভাবে বুঝিয়ে দিচ্ছিলেন, যা হয়েছে তাঁদের জন্যই হয়েছে। কিন্তু বাংলা বিজেপি ‘আহাম্মক’-এর মতো সেটাই করে বসেছে। মুরলীধর সেন লেনের অফিশিয়াল টুইটার হ্যান্ডল থেকে লিখে দেওয়া হয়, যা হয়েছে মোদীর জন্য হয়েছে। এই উদ্যোগ প্রধানমন্ত্রীই নিয়েছিলেন। ইউনেস্কোতে প্রধানমন্ত্রী বা প্রধানমন্ত্রী প্রস্তাব না করলে দুর্গাপুজোর এই স্বীকৃতি জুটতো না।

যা দেখে অনেকেই ভ্রু কুঁচকেছিলেন। ওই টুইটে বিদ্রুপও ধেয়ে আসছিল। জনৈক এক অধ্যাপিকা বাংলা বিজেপির ওই টুইটে গিয়ে লিখেছিলেন, মোদীর জন্যই মা দুর্গা ধন্য হলেন!
কাজটা মোটা দাগের হয়ে গিয়েছে দেখে বাংলা বিজেপি ওই টুইট শেষপর্যন্ত মুছে দিয়েছে। এদিন বাঘাযতীনের সভা থেকে যেন সেটাকেই কার্যত নিশানা করলেন দিদি।

You might also like