Latest News

পুজো কার্নিভালে একমঞ্চে শ্রীকান্ত-জুন, ঝগড়া কি মিটল অবশেষে?

দ্য ওয়াল ব্যুরো: তরজায় দাঁড়ি আগেই পড়েছিল। তাঁদের একে অপরকে ‘হ্যান্ডশেক’ করিয়ে মিলিয়ে দিয়েছিলেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। হাসিমুখে হাতও মিলিয়েছিলেন তাঁরা। আর সেভাবেই ঝগড়ায় ইতি টেনেছিলেন জুন মালিয়া ও শ্রীকান্ত মাহাতো। তবে একসঙ্গে তাঁদের আর দেখা যায়নি। এবার পুজো উপলক্ষে প্রকাশ্য মঞ্চে একসঙ্গে দেখা গেল তাঁদের। পুজা কার্নিভ্যাল ফের মিলিয়ে দিল জুন-শ্রীকান্তকে। প্রকাশ্য মঞ্চে শ্রীকান্তকে বিজয়ার অভিবাদন জানালেন বিধায়ক জুন মালিয়া। ধামসা মাদলের তালে তালে এদিন নাচতেও দেখা গেছে জুনকে।

কয়েক মাস আগে প্রকাশ্যে দলের বিরুদ্ধে মুখ খুলেছিলেন রাজ্যের ক্রেতা সুরক্ষা দফতরের ভারপ্রাপ্ত মন্ত্রী তথা শালবনির বিধায়ক শ্রীকান্ত মাহাতো। তৃণমূলের তারকা সাংসদ, বিধায়ক থেকে দলের একাংশ জেলা নেতা-নেত্রীর সম্পর্কে বেফাঁস মন্তব্য করে বিতর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন তিনি। দলীয় নেতৃত্বের সমালোচনা করতেও শোনা গিয়েছিল তাঁকে। শ্রীকান্ত বলেছিলেন, ‘‘জুন মালিয়া, সায়নী, সায়ন্তিকা, মিমি, নুসরতরা লুটেপুটে খাচ্ছে। এঁরা যদি সম্পদ হয়, তাহলে তো আর পার্টি করা যাবে না!’’ শালবনির বিধায়ককে শো-কজ করেছিল জেলা নেতৃত্ব। এরপর অবশ্য ক্ষমা চেয়ে নিয়েছিলেন শ্রীকান্ত। তবে জুনের সঙ্গে দূরত্ব বেড়েছিল। এমন মন্তব্যের জন্য জুনের কাছে শ্রীকান্ত মাহাতোকে ক্ষমাও চাইতে বলেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

মাসখানেক আগে খড়্গপুরের বৈঠকে বরফ গলানোর চেস্টা করেছিলেন দলনেত্রী। দু’জনকে ডেকে হাত মিলিয়ে দিয়েছিলেন তিনি। তারপর থেকে এই ব্যাপারে আর কোনও জলঘোলা হতে শোনা যায়নি। তবে দু’জনেই নিজেদের মধ্যে দূরত্ব রেখে চলছিলেন। একসঙ্গে জুন ও শ্রীকান্তকে প্রকাশ্য মঞ্চেও দেখতেও পাওয়া যায়নি। আজ মেদিনীপুর শহরের কার্নিভ্য়ালে একই মঞ্চে ফের দেখা গেল দু’জনকে। মঞ্চে অবশ্য দু’জন বসেছিলেন দূরত্ব মেনেই। মঞ্চের মাঝে বসেছিলেন জুন। তারপর উত্তরা সিং হাজরা, মন্ত্রী মানস ভুঁইয়া। আর তারপর বসেন শ্রীকান্ত। তখনই একে অপরের সঙ্গে কথা বলেন তাঁরা। বিজয়ার অভিবাদনও জানান হাসিমুখে। তা দেখে রাজনৈতিক মহলের একাংশের মন্তব্য, শ্রীকান্ত ও জুনের ঝগড়া অবশেষে মিটল!

You might also like