Latest News

মালদায় বন্যাত্রাণের টাকা আত্মসাৎ! এফআইআর তৃণমূলের গ্রামপ্রধানের বিরুদ্ধে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: প্রকৃত দুর্গতরা বন্যাত্রাণের টাকা পাননি। তার বদলে ঘনিষ্ঠদের অ্যাকাউন্টে টাকা ঢুকিয়ে তা আত্মসাৎ করেছেন গ্রামপ্রধান! মালদহে এভাবেই ত্রাণের কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধানের বিরুদ্ধে পুলিশের কাছে এফআইআর দায়ের করলেন বিডিও। হরিশ্চন্দ্রপুর-১ ব্লকের বরুই গ্রাম পঞ্চায়েতের তৃণমূলের প্রধান সোনামণি সাহার বিরুদ্ধে এই এফআইআর হতেই তৃণমূলের অন্দরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

প্রশাসন ও পঞ্চায়েত সূত্রে জানা গিয়েছে, ২০১৭ সালে এলাকায় ভয়াবহ বন্যা হয়। বন্যায় বহু বাসিন্দার ক্ষতি হয়। কারও কারও ঘরদোর সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়! এর পরেই রাজ্য সরকারের তরফে আংশিক ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ৩৩০০ টাকা ও সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ৭০ হাজার টাকা করে অনুদান দেওয়া হয়।

কিন্তু অভিযোগ, প্রকৃত উপভোক্তাদের অনেকেই এই টাকা পাননি। এই কথা জানিয়ে তাঁরা প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগও জানান। প্রকৃত দুর্গতদের টাকা না দিয়ে গ্রাম প্রধান তাঁর ঘনিষ্ঠদের অ্যাকাউন্টে টাকা ঢুকিয়ে তা আত্মসাৎ করেন বলে অভিযোগ ওঠে। এমনকি একেক জনের নামে পাঁচ থেকে ছ’বার করে টাকা ঢোকানো হয় বলেও অভিযোগ ওঠে।

এর পরেই তদন্তে নামে প্রশাসন। এই তদন্তে আবার প্রশাসন অযথা ঢিলেমি করছে বলে, কলকাতা হাইকোর্টে মামলাও করেন কংগ্রেসের বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নান। তিনি বলেন, প্রশাসন প্রধানকে তিনবার শো-কজ করলেও কোনও ব্যবস্থা নেয়নি। দুর্গতদের টাকা না দিয়ে তা লুঠ করা হয়েছে।

আব্দুল মান্নানের রুজু করা এই মামলার পরেই রবিবার গ্রামপ্রধান সোনামণি সাহার বিরুদ্ধে পুলিশে অভিযোগ জানান বিডিও। এই প্রসঙ্গে বিডিও অনির্বাণ বসু বলেন, পুলিশে অভিযোগ জানানো হয়েছে। এবার পুলিশ তদন্ত করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করবে। চাঁচলের এসডিপিও শুভেন্দু মণ্ডলও জানান, পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। সব খতিয়ে দেখে আইনানুগ পদক্ষেপ করা হবে।

এদিকে এদিন গ্রামপ্রধানকে বারবার ফোন করা হলেও তিনি তা ধরেননি। পঞ্চায়েতে গেলে তালা ঝুলতে দেখা যায়, বাড়িতে গেলে প্রধানের ছেলে গৌরব সাহা বলেন, বাবা-মা কেউ নেই, কোথায় গেছেন জানি না। তৃণমূল জেলা কো-অর্ডিনেটর দুলাল সরকার জানান, সবদিক খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

You might also like