Latest News

ভাঙড়ে বিদ্রোহের মেঘ, জমি অধিগ্রহণের বিরুদ্ধে মিছিল চাষিদের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: এই ক’বছর আগেই পাওয়ার গ্রিডের বিরোধিতায় উত্তাল আন্দোলন দেখেছে ভাঙড়। পুলিশের ঘিরে ফেলা, গ্রেফতার, গুলি—কিছুই সেই আন্দোলনকে দমাতে পারেনি। আবার সেই ভাঙড়ে বিদ্রোহের মেঘ। ফের সেই জমি অধিগ্রহণই ইস্যু ভাঙড়ে।

যে জমিতে চাষ করে বছরভরের বেঁচে থাকার রসদ ঘরে তোলেন তাঁরা, এবার সেই জমি হাতছাড়া হওয়ার আশঙ্কায় জোট বাঁধলেন ভাঙড়ের চাষিরা। মঙ্গলবার সকালে ভাঙড়ের বামনঘাটার কৃষকরা নিজেদের জমি বাঁচাতে পথে নামলেন। বামনঘাটা বাজার সহ পাশ্ববর্তী এলাকায় বিক্ষোভ ও মিছিল করলেন তাঁরা। সাহেব ভেড়ি নামে পরিচিত এই এলাকায় প্রায় ৬৭ বিঘে জমি রয়েছে। গোটা এলাকাতেই চাষবাস করেন এলাকার চাষিরা। সম্প্রতি একটি প্ল্যান্ট তৈরির জন্য প্রায় ২৭ বিঘে জমি সেচ দফতর ও কেএমসি জোর করে দখল নিয়ে নিচ্ছে বলে চাষিদের অভিযোগ।

বাসন্তী হাইওয়ের উপর বামনঘাটা সাহেবভেড়ি হিসাবে পরিচিত এই এলাকা। জানা গেছে, ১৯৬২ সালে প্রায় ৬৭ বিঘা জমি সেচ দফতর এলাকার পঞ্চানন নস্কর নামের এক ব্যক্তির নামে রেকর্ড করে। পরে পঞ্চানন নস্কর এলাকার সাধারণ মানুষের কাছে সেই জমি লিজ দেন। তখন থেকেই এলাকার কৃষকরা চাষ করে আসছেন এই জমিতে। অভিযোগ চাষিদের সঙ্গে কোনও কথা না বলে গত ২৪ তারিখ বুধবার সেচ দফতরের আধিকারিক ও কেএমডিএর আধিকারিকরা সাহেবভেড়িতে উপস্থিত হয়ে জমি মাপতে শুরু করেন। কয়েকজন কৃষক কী করা হচ্ছে জানতে চাইলে কলকাতা লেদার কমপ্লেক্স থানার পুলিশকে দিয়ে তাদের এলাকাছাড়া করা হয় বলে অভিযোগ।

বামনঘাটা গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান অমরেশ মণ্ডলও এভাবে জমি নেওয়ার বিরোধী। দীর্ঘদিন দখলে থাকা সাহেবভেড়ির চাষের জমি কেন জোর করে দখল করে নেওয়া হচ্ছে সেই প্রশ্নে কৃষকদের জমি আন্দোলনের পাশে দাঁড়াল বামনঘাটার সিপিএম নেতৃত্বও।

সিঙ্গুরের আন্দোলনের কথা দুনিয়া জানে। সম্প্রতি কয়লা ব্লক তৈরিতে জমি অধিগ্রহণ ঘিরে জট পেকেছে বীরভূমের মহম্মদ বাজার ব্লকের দেউচা পাচামিতেও। মুখ্যমন্ত্রী প্যাকেজ ঘোষণা করলেও আদিবাসীরা সেসব মানছেন না। দেউচা নিয়ে যখন অসন্তোষ ক্রমশ দলা পাকাচ্ছে তখন ভাঙড়ের আকাশে নতুন করে বিদ্রোহের মেঘ।

You might also like