Latest News

সন্ধ্যারতির মহড়ায় গায়ে গা লাগিয়ে শ’তিনেক মানুষ, শিকেয় কোভিড-বিধি গঙ্গাসাগরে

সুকমল শীল, সাগরদ্বীপ

বর্ণাঢ্য সন্ধ্যারতির (evening arati) আয়োজন করা হয়েছে এবারের গঙ্গাসাগর মেলায় (gangasagar) । কাল, বৃহস্পতিবার হবে সেই অনুষ্ঠান। প্রায় একশো ঢাকি, জনা পঞ্চাশ কাশিবাদক এবং শাঁক বাজাবেন প্রায় দেড়শো মহিলা। তারই রিহার্সাল হচ্ছিল আজ, বুধবার। এবং যা অনুমান করা হচ্ছিল, তাই হল! গা ঘেঁষাঘেঁষিতে কোভিডিবিধি (covid rules) উঠল শিকেয়। কোভিডের সময় কেন এই বাহুল্য তা নিয়েও উঠেছে প্রশ্ন। মেলায় আসা বহু মানুষের বক্তব্য, হাইকোর্ট যেখানে প্রতীকী আয়োজনের মধ্যে মেলা সারতে বলেছে, তখন এমন আয়োজনের (arrangements) কী দরকার ছিল?

এদিন সকাল থেকেই টিপটিপে বৃষ্টি। রাস্তাঘাট কাদায় প্যাচপ্যাচে। সাজানো মেলাপ্রাঙ্গণ কিছুটা ম্লান। যেকারণে মেলার প্রথমদিনে গঙ্গাসাগরে পূর্ণার্থীদের ভিড় অনেক কম। তবে লোকজন কম থাকলেও সকাল থেকে খামতি ছিলনা কোভিডিবিধিতে। কিন্তু গঙ্গাসাগরকে আরও বর্ণময় করে তোলার প্রয়াসই বাদ সাধল তাতে।

ডিএনএ নামে একটি সংস্থা আয়োজক ওই সন্ধ্যারতির। আয়োজকরা জানালেন, সরকারই তাঁদের বরাত দিয়েছে। অনুমতি নিয়েই অনুষ্ঠান হচ্ছে। কাল বিকেল পাঁচটায় অনুষ্ঠান। তারই মহড়া হচ্ছে। অথচ আয়োজকদেরই অনেকের মুখে মাস্ক দেখা গেল না!

 

এদিনই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, বেশি হুল্লোড়ের দরকার নেই, ছোট করে মেলা হোক। কোভিডিবিধি মেনে চলুক সবাই। তারপরও এরকম লাগামছাড়া আমোদ কেন? এক পুলিশকর্মী বললেন, ‘আমরা বলতে পারব না। সরকার কাকে কী অনুমতি দিয়েছে জানিনা।’

উল্লেখ্য, এদিন ডায়মন্ড হারবার ঢোকার পর থেকেই চোখে পড়েছে মেলায় করোনাবিধি মেনে চলার বিভিন্ন প্রচার। এবারের সাগরমেলা মানে শুধু উৎসব, তীর্থ নয়, দায়িত্বের। সেটাই প্রতিমুহূর্তে মনে করাচ্ছে মাইকের প্রচার। কিন্তু বিধি বাম! অনেকের আশঙ্কা এই মেলা রাজ্যের ‘সুপার স্প্রেডার’ হতে চলেছে। অনেকে বলছেন, ওই আশঙ্কা যে অমূলক নয়, তা এদিনের আয়োজনের স্পষ্ট।

 

You might also like