Latest News

করোনা রোগীকে অন্যত্র রেফার করেছে হাসপাতাল, মিলল না অ্যাম্বুল্যান্স! হাবরায় মৃত প্রৌঢ়া

দ্য ওয়াল ব্যুরো: রাজ্যের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার আরও এক বেহাল দশার ছবি উঠে এল প্রকাশ্যে। স্রেফ অ্যাম্বুল্যান্সের অভাবে মারা গেলেন এক করোনা রোগী। তার পরে দীর্ঘক্ষণ পড়ে রই তাঁর দেহও। শুক্রবার হাবরার এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ মৃতর পরিবারের সদস্যরা।

স্থানীয় সূত্রের খবর, গতকাল অর্থাৎ বৃহস্পতিবার রাতে হাবরার নতুনহাট বাজার এলাকার বাসিন্দা মনোয়ারা বিবিকে নিয়ে রাত একটা নাগাদ হাবরা হাসপাতালে আসেন তাঁর পরিবারের লোকজন। ৫৫ বছরের মনোয়ারা বিবির জ্বর ও শ্বাসকষ্ট থাকায় চিকিৎসকদের সন্দেহ হলে সঙ্গে সঙ্গে করোনার ব়্যাপিড টেস্ট করা হয় রোগীর। সেই রিপোর্ট পজেটিভ আসে।

এর পরেই ওই রোগীকে রেফার করে দেওয়া হয় অন্য হাসপাতালে। রোগীর পরিবারের লোকজন সঙ্গে সঙ্গে সরকারি স্বাস্থ্য দফতরের কন্ট্রোলরুমে যোগাযোগ করে অ্যাম্বুল্যান্স জোগাড় করার চেষ্টা করেন। অভিযোগ, কয়েক ঘণ্টা কেটে গেলেও অ্যাম্বুল্যান্স আসে না। পরিস্থিতি ক্রমে খারাপের দিকে যেতে থাকে ওই মহিলার।

শেষে রাত সাড়ে তিনটে নাগাদ মনোয়ারা বিবির মৃত্যু হয় এবং অ্যাম্বুল্যান্স এসে পৌঁছয় ভোর চারটের পরে।
তাঁর পরিবারের অভিযোগ, সময়মতো অ্যাম্বুল্যান্স পেলে হয়তো তাঁদের মাকে বাঁচানো যেত। স্বাস্থ্য বিভাগের গাফিলতির দিকে আঙুল তোলে পরিবার।

এখানেই শেষ নয়, ভোর রাতে মনোয়ারা বিবির মৃত্যু হলেও দুপুর বারোটা পর্যন্ত হাসপাতালের বাইরেই পড়ে ছিল মৃতদেহ। করোনায় মৃত মায়ের দেহটি নিয়ে কী করা হবে, কীভাবে শেষকৃত্য হবে, সে বিষয়ে হাসপাতালের কেউই কিছু সাহায্য করেননি বলে অভিযোগ পরিবারের।

হাবরা হাসপাতালে সুপার শঙ্করলাল ঘোষ জানান, রোগীকে অতি সিরিয়াস অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়েছিল। করোনা ধরা পড়ায় নিয়ম মেনেই রেফার করে দেওয়া হয়। এর পরে অ্যাম্বুল্যান্স জোগাড় করা সম্ভব ছিল না হাসপাতালের পক্ষে। এমনকি দেহটিও হাসপাতালের বাইরে ছিল। পরিবারের লোকজন সৎকারের ব্যবস্থা করেননি বলেই পাল্টা অভিযোগ তাঁর।

You might also like