Latest News

নতুন পোশাক পরব না! নয়া নীল-সাদা ইউনিফর্ম ছিঁড়ে ফেলে দিল কোচবিহারের পড়ুয়ারা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সরকারের অধীনস্থ সমস্ত স্কুলের ইউনিফর্ম (uniform) নীল-সাদা করে দেওয়ার প্রতিবাদে আগেই বিক্ষোভে সামিল হয়েছিল রাজ্যের বিভিন্ন স্কুলের (school) পড়ুয়ারা (students)। সেই বিষয়েই এবার নজিরবিহীনভাবে বিক্ষোভ দেখাল কোচবিহারের (Coochbehar) একটি স্কুলের পড়ুয়ারা। সরকারের দেওয়া নতুন ইউনিফর্ম হাতে পেয়েই তা ছিঁড়ে (tore) স্কুলের জানলা দিয়ে ছুড়ে ফেলে দিল (threw) ছাত্রছাত্রীরা।

ঘটনাটি ঘটেছে কোচবিহার ২ নম্বর ব্লকের মণীন্দ্রনাথ হাই স্কুলে। বুধবার সরকার থেকে দেওয়া নীল সাদা ইউনিফর্ম তুলে দেওয়া হয় পড়ুয়াদের হাতে। কিন্তু পোশাক হাতে পাওয়া মাত্রই তা জানলা দিয়ে ছুড়ে ফেলে দেয় ছাত্রছাত্রীরা। শুধু তাই নয়, বিক্ষোভ দেখানোর উদ্দেশ্যে স্কুলের মাঠে ও জমায়েত করে পোশাক ছিঁড়ে ফেলে দেয় পড়ুয়ারা।

ছাত্র-ছাত্রীরা জানিয়েছে, গত ৭০ বছর ধরে এই স্কুলের পোশাকের রং সবুজ ও সাদা। ঐতিহ্যবাহী সেই পোশাকের রং হঠাৎ করেই বদলে যাওয়া মেনে নিতে পারছেন না কোনও ছাত্র-ছাত্রীই। পড়ুয়ারা স্পষ্ট জানিয়েছে, তারা কেউই নতুন এই ইউনিফর্ম পরে স্কুলে আসবে না।

তবে পড়ুয়াদের এই বিক্ষোভের বিষয়ে কিছুই জানা নেই বলে জানিয়েছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। স্কুলের সহকারি প্রধান শিক্ষক বীরেশ রায় জানিয়েছেন, সরকারের তরফ থেকে এই নীল সাদা পোশাক দেওয়া হয়েছে যা ইতিমধ্যেই ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে বিলি করা শুরু হয়ে গেছে। তবে সবকটি ক্লাসে এখনও নয়া ইউনিফর্ম দেওয়া সম্ভব হয়নি। তবে সরকারের দেওয়া নতুন ইউনিফর্ম ছাত্রছাত্রীরা পরবে কিনা সেই বিষয়ে স্কুলের তরফে কোনও রকম নির্দেশিকা জারি করা হয়নি বলে জানিয়েছেন তিনি। তাঁর দাবি, ‘তবে স্কুলের ছাত্রছাত্রীরা পোশাক ছিঁড়ে ফেলেছে কি না সেই বিষয়ে আমাদের কিছু জানা নেই।’

প্রসঙ্গত স্কুলের ইউনিফর্ম বদল হওয়ার নির্দেশিকা পাওয়া মাত্রই জলপাইগুড়ি-সহ রাজ্যের একাধিক জেলার স্কুলের পড়ুয়ারা সে নির্দেশিকার প্রতিবাদে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেছিল। কিন্তু সরকার কোনও কিছুতেই কর্ণপাত করেনি। ইতিমধ্যেই নীল সাদা পোশাক বিলি করার কাজ শুরু হয়ে গেছে। তার মধ্যেই এমন বেনজির বিক্ষোভের সাক্ষী হল মণীন্দ্রনাথ হাই স্কুলের পড়ুয়া ও শিক্ষক-শিক্ষিকারা।

বেআইনি ভাবে যাঁরা চাকরি পেয়েছেন, তাঁদের হুঁশিয়ার করতে বিজ্ঞাপনের নির্দেশ বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের

You might also like